1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:১৫ অপরাহ্ন

কুড়িগ্রামকে বন্যা দুর্গত এলাকা ঘোষণা করা হউক : গণফোরাম

মৃদুভাষণ রিপোর্ট :: কুড়িগ্রাম জেলার বন্যা পরিস্থিতি ১৯৮৮ সালের মতই সমগ্র জেলা মারাত্মক বন্যা কবলিত হয়েছে। জেলা শহর থেকে নাগেশ্বরী, ভূরুঙ্গামারী ও ফুলবাড়ী এই ০৩ (তিন) উপজেলা যোগাযোগ বিছিন্ন। প্রধান সড়কটি ০৩ (তিন) জায়গায় ক্ষতিগ্রস্ত ও ভাঙ্গন কবলিত। বানভাসিদের উদ্ধারের কোন উদ্যেগ এখন পর্যন্ত নেয়া হয়নি।পানিতে ডুবে ইতোমধ্যে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। গণফোরামের জোর পক্ষ থেকে আমি জোর দাবী করছি যে, অবিলম্বে চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলা কে মারাত্মক কবলিত বন্যা দুর্গত এলাকা হিসাবে ঘোষণা করা হউক, একই সাথে বিশেষ ত্রাণ পূর্ণ বাসন কর্মসূচী এবং ত্রাণ জনস্বাস্থ্য এবং পুনর্বাসনের জন্য বিশেষ কর্মসূচি হাতে নেওয়া প্রয়োজন।

রবিবার কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবে লিখিত বক্তব্যে গণফোরাম সভাপতি পরিষদেও সদস্য আমসা আমিন আর ও বলেন শহর রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে রৌমারী, রাজিবপুর ও চিলমারী উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরসহ উপজেলা শহর পানি বন্ধী হয়ে আছে। রবিবার পর্যন্ত রাস্তায় বাজারে হাঁটু পানি সমান নিমজ্জিত। কুড়িগ্রাম জেলার ৯ উপজেলার প্রায় দুই তৃতীয়াংশ মানুষ দীর্ঘ দেড় সপ্তাহ ধরে পানিবন্দি থাকায় তাদের মাঝে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। নিজেদের খাদ্যের পাশাপাশি গো-খাদ্যের সংকঠ দেখা দিয়েছে।

গণফোরামের জোর পক্ষ থেকে আমি জোর দাবী করছি যে, অবিলম্বে চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলা কে মারাত্মক কবলিত বন্যা দুর্গত এলাকা হিসাবে ঘোষণা করা হইক, একই সাথে বিশেষ ত্রাণ পূর্ণ বাসন কর্মসূচী এবং ত্রাণ জনস্বাস্থ্য এবং পুনর্বাসনের জন্য েিবশষে কর্মসূচি হাতে নেওয়া প্রয়োজন। দক্ষতার সহিত এসব কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য সেনা বাহিনীকে নিয়োগ করা যেতে পারে। বন্যায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন বানভাসি মানুষজন। নৌকা দেখলেই ছুটছেন ত্রাণের আশায়।অথচ সরকার এব্যাপারে সম্পূর্ণ উদাসীন। নাম মাত্র ত্রাণের কথা জানালেও বানভাসিদের ভাগ্যে তাও জুটছেনা ।সে সাথে বানভাসিদের উদ্ধারের কোন উদ্যোগ এখন পর্যন্ত নেয়া হয়নি।পানিতে ডুবে ইতোমধ্যে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com