বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:১০ অপরাহ্ন

পাসপোর্ট চুরি গেছে দেশভ্রমণে সেঞ্চুরিয়ান সেই তরুণীর

আসমা আজমেরী জেনি

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: পাসপোর্ট চুরি গেছে আলোচিত সেই তরুণি আসমা আজমেরী জেনির।

ইতালির মিলান শহরে সম্প্রতি চুরি হয়ে গেছে তার পাসপোর্টগুলো।

পাসপোর্ট অনেকেরই হারিয়ে বা চুরি যায়, তবে আজমেরীর পাসপোর্ট চুরি যাওয়ার ঘটনা খবরে প্রকাশযোগ্য।

কারণ আর সবার পাসপোর্টের তুলনার আজমেরীর পাসপোর্ট অনেক ভারী।

কেননা এ সবুজ পাসপোর্টে রয়েছে বিশ্বের ১১০টি দেশের সিল!

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশি এ সবুজ পাসপোর্ট নিয়ে ১০০ দেশ ভ্রমণের রেকর্ড গড়ে আলোচনায় আসেন আজমেরী।

সে বছরের ২৯ আগস্ট তুর্কিমিনিস্তানের মাটিতে পা রেখে প্রথম বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী হয়ে এ অনন্য রেকর্ড গড়েন।

২২ গজের মাঠে সেঞ্চুরি করে যেভাবে উল্লাস করেন ক্রিকেটাররা, আজমেরীর সে উল্লাস আরও অনেক বেশি।

এমন অনন্য রেকর্ড করেও থেমে থাকেনি তার সেই ইনিংস।

এখন পর্যন্ত আরও ১০ দেশ ভ্রমণের সিল যোগ হয়েছে আজমেরীর পাসপোর্টে।

শেষবার মাল্টা গিয়ে সেখান থেকে ইতালির মিলানে প্রবেশ করেন আজমেরী।

সেখান থেকে মোনাকো ভ্রমণে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন । এ সময়ই ঘটে সেই দুর্ঘটনা।

মিলানো আন্ডারগ্রাউন্ড থেকে চুরি হয়ে যায় তার সেই পাঁচটি পাসপোর্ট। সঙ্গে টাকা পয়সাও।

গত ২৬ আগস্ট এ বিষয়ে তিনি ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন।

সেখানে তিনি লেখেন, আমার ব্যাগ থেকে টাকা এবং আমার সব পাসপোর্ট চুরি হয়ে গেছে, এখন আমার অবস্থা খুবই খারাপ। বুঝতেছিনা কি করব। আমি মিলান শহরে আছি। এরপর মিলানে বাংলাদেশি ভাইদের সাহায্য চেয়ে আরেকটি স্ট্যাটাস দেন এই পরিব্রাজককন্যা।

জানা গেছে, ফের অদম্য স্পৃহা নিয়ে নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছেন আজমেরী।

উল্লেখ্য, আজমেরী জেনির পর্যটক জীবনের শুরু হয় ২০০৯ সালে।

সে বছরই ভারত, নেপাল, ভুটান, সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়া ভ্রমণ করে আসেন।

পরের বছর মিসর, মরক্কো, তুরস্ক, চীন, ফ্রান্স, ব্রুনেই, বেলজিয়ামসহ ১১টি দেশ।

২০১৬ সালে তার পরিকল্পনায় ছিল ইউরোপ মহাদেশ। সে বছরে আরবসহ ইউরোপের ১৯টি দেশ ভ্রমণ করেন তিনি।

২০১৭ সালে ফিদেল কাস্ট্রের দেশ কিউবাও ঘুরে আসেন। ২০১৯ এ তুর্কিমেনিস্তান দিয়ে একশত দেশ ভ্রমণের ঐতিহাসিক রেকর্ড গড়েন তিনি।

সর্বশেষ ইতালির মিলানে এসে তার পাসপোর্টগুলো খোয়া গেলে ভ্রমণে হোঁচট খেতে হয় তাকে।

বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে ভ্রমণের এই চাঞ্চল্যকর জয়যাত্রা আপাতত থেমে আছে।

১০০ টি দেশে ভ্রমণের পর এমন পরিকল্পনার বিষয়ে আজমেরী বলেছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন তার এক বন্ধুর মা তাকে বলেছিলেন, তুমি একজন দুর্বল ও যোগ্যতাহীন মেয়ে। আমার ছেলে ২০ দেশ ঘুরেছে। আর তুমি মাত্র দুটো দেশ ঘুরেছ। এতেই তোমার অহঙ্কার।

সে কথা শোনার পর বিশ্বভ্রমণটাকে সেদিন চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছিলেন।

বাঙালি নারী হয়েও সে চ্যালেঞ্জের পূর্ণতা দিয়েছেন আজমেরী।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com