সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ১২:৪৭ অপরাহ্ন

বন্ধুত্ব ও যৌনতা নিয়ে জার্মানদের ভাবনা কী?

এক তৃতীয়াংশ জার্মান ‘ফ্রেন্ডস উইথ বেনিফিটস’ বা বন্ধুত্বের পাশাপাশি ‘বাড়তি’ কিছু পাওয়াটাকে খারাপ মনে করেন না৷ বিশ্ব বন্ধু দিবস উপলক্ষ্যে ‘ইউগভ’ এর নতুন জরিপ তাই বলছে৷

আগামী ৩০ জুলাই বিশ্ব বন্ধু দিবস৷ এই দিবসকে সামনে রেখেই ঐ জরিপে জানতে চাওয়া হয়েছিল, পুরুষ এবং নারী কি সত্যিই ভালো বন্ধু হতে পারে? ‘ইউগভ’ এর জরিপ অনুযায়ী, ৭৩ ভাগ জার্মান এক্ষেত্রে ইতিবাচক মনোভাব জানিয়েছেন৷ ২ হাজার ৪৫ জন এই জরিপে অংশ নিয়েছিলেন৷ এদের অর্ধেক মনে করেন, প্রেম ভেঙে যাওয়ার পরও সেই ছেলে বা মেয়েটির সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকতেই পারে৷ বৃহস্পতিবার এই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়৷

এক তৃতীয়াংশ জার্মান মনে করেন, বন্ধুত্বের পাশাপাশি ‘বাড়তি কিছু সুবিধা’ পাওয়া গেলে তাতে কোনো ক্ষতি নেই৷ এক্ষেত্রে তাঁরা বন্ধুদের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের বিষয়টি বোঝাতে চেয়েছেন এবং সেক্ষেত্রে সেটা বন্ধুত্বই, প্রেম নয়৷

কাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানী ইয়ানোস শোবিন জানালেন, ‘‘সাধারণ মানুষের মধ্যে ‘ফ্রেন্ডস উইথ বেনিফিটস’ বিষয়টা দিন দিন গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে৷”

৬৯ শতাংশ জার্মান মনে করেন, বন্ধুত্ব একসময় প্রণয়ে রূপ নিতে পারে৷

জার্মানদের মধ্যে কি ‘প্রাণের বন্ধু’ আছে? জরিপে দেখা গেছে, মাত্র দুই তৃতীয়াংশ জার্মানের মধ্যে অন্তত একজন ঘনিষ্ঠ বন্ধু রয়েছে৷ পাঁচ বছর আগের একই ধরণের জরিপে অবশ্য সংখ্যাটা আরও কম ছিল৷

গত কয়েকবছরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের দ্বারা বন্ধু তৈরির প্রবণতা বেড়ে গেলেও ৭৪ ভাগ জার্মান মনে করেন, ‘অফলাইনের’ বন্ধুই দীর্ঘস্থায়ী হয়৷ এমনকি প্রতি পাঁচজনের একজন জানিয়েছেন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তাদের এমন প্রচুর বন্ধু রয়েছে, যাদের সঙ্গে কখনো দেখাই হয়নি৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘‘যাদের ইন্টারনেটে প্রচুর বন্ধু রয়েছে, দেখা যায় তাদের বয়স অল্প এবং তারা বিভিন্ন ধরনের গেম খেলে এবং এর মাধ্যমে একে অপরের সঙ্গে যুক্ত হয়৷ ” DW


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com