মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন

ভোগ ইন্ডিয়ার প্রচ্ছদে শাহরুখ খানের মেয়ের ছবি নিয়ে ক্ষোভ কেন?

মুদৃভাষণ ডেস্ক :: বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের মেয়ের ছবি ভোগ ইন্ডিয়া ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে ছাপানোর ফলে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে পত্রিকাটি।শাহরুখ খানের ১৮বছর বয়সী মেয়ে সুহানা খানের ছবি ম্যাগাজিনটির এবারের প্রচ্ছদের আসার পর অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাতে থাকেন। তাদের বক্তব্য, সুহানা খানের এই প্রচ্ছদে জায়গা পাওয়ার অধিকার নেই।

কারণ, সেজন্য বিশেষ কোন যোগ্যতার পরিচয় তিনি দিতে পারেননি বা বিশেষ কোন অর্জন নেই তার।

ভোগ ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে জায়গা পাওয়াটাকে মনে করা হয় গৌরবের এবং সাধারণত শীর্ষ মডেল, অভিনেত্রী কিংবা গায়িকারা যখন তাদের ক্যারিয়ারের চূড়ায় থাকেন তখন তাদের ছবি প্রচ্ছদে ঠাঁই পায়।

সুহানা খান নিজেই নিজেকে বর্ণনা করেছেন, “শিক্ষার্থী, নাট্টপ্রেমী এবং ভবিষ্যৎ তারকা” হিসেবে।

তার বাবা শাহরুখ খান ‘বলিউডের কিং খান’ হিসেবে পরিচিত । আর এই ম্যাগাজিনের কভার পেজ-এ তার জায়গা পাওয়াকে অনেকেই দেখছেন প্রভাবশালী বাবার প্রভাবের কারণে পাওয়া সুযোগ হিসেবে আর সে কারণেই তার জায়গা হয়েছে প্রচ্ছদে!

ফ্যাশন শুটের স্টাইল নির্দেশনা করেছেন আনাইতা শ্রফ আদাজানিয়া যিনি ভোগ ম্যাগাজিনের ফ্যাশন ডিরেক্টর এবং শাহরুখ খানের দীর্ঘদিনের বন্ধু।

এটাই সুহানার প্রথম কোনও ফটো শুট এবং সাক্ষাতকার।

ম্যাগাজিনের ইনস্টাগ্রাম পোস্টে তাকে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়েছে এই অঙ্গনের নতুন মেয়ে বলে।

আর ইতোমধ্যেই তা ৩৬,০০০ এর বেশি লাইক পেয়েছে।

সামাজিক মাধ্যম টুইটারে যারা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন ক্যারিয়ার প্রতিষ্ঠায় স্ট্রাগল করছেন এমন অভিনেত্রীরা। তারা এক্ষেত্রে তাদের নিজেদের অভিজ্ঞতার বিষয়ও তুলে ধরেছেন।

শ্রুতি ট্যান্ডন নামে একজন ভোগ ইন্ডিয়া থেকে সুহানার ছবি শেয়ার করে হ্যাশট্যাগ লিখেছেন “এমনকিছু বিষয় আছে যা হওয়া উচিত না কিন্তু হচ্ছে-#স্বজনপ্রীতি…অনেক অভিনয়শিল্পী থাকা সত্ত্বেও কিন্তু সেলেব্রিটি বাচ্চারাই ভোগের প্রচ্ছদে স্থান পায়, যার এমনকি একটিও সিনেমা মুক্তি পায়নি সে ভোগের প্রচ্ছদে জায়গা পেয়েছে কারণ তোমার বাবা একজন স্টার- গ্রহণযোগ্য নয়।”

এই ধরনের নেতিবাচক বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া সুহানা নিজেই দিয়েছেন তার সাক্ষাতকারে: ” আমি নিজেকে সবসময় বলি যে নিন্দুকেরা বিদ্বেষ ছড়িয়ে যাবে, কিন্তু এটা যে আমাকে আপসেট করে না সত্যিকারভাবে সেটা আমি বলতে পারিনা”।

“এটা বিরক্তিকর, কিন্তু আমি নিজেকে বোঝাই অন্য অনেকের আরও বড় বড় সমস্যা আছে।”

ভোগ বিউটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে এই প্রচ্ছদ উন্মোচন করেন সুহানার বাবা শাহরুখ খান। সেখানে তিনি বলেন একে কোন সুবিধা হিসেবে দেখা হবে না বলে তিনি আশা করেন।

“…বাচ্চারা তো বাচ্চাই, শিশুরা তো শিশু, এবং এই পরিবর্তনশীল বিশ্বে বন্ধুদের সহায়তা দরকার তাদেরকে আরও একটু বেশি স্বস্তি দিতে, আরও আত্মবিশ্বাস এবং আত্মমর্যাদা দিতে। তাই ভোগ ম্যাগাজিনকে আমি ধন্যবাদ দেবো আমার ছোট্ট মেয়েটিকে পত্রিকার প্রচ্ছদে জায়গা দেয়ার জন্য।”

“আমি আশা করবো, সে শাহরুখ খানের মেয়ে কেবল সে কারণে একে বিশেষ সুবিধা নেয়া বলে মনে করবেন না…”

শাহরুখ খান টুইটারে লেখেন, “ওকে আবারও আমার হাতের ওপর তুলে ধরলাম, ধন্যবাদ ভোগ…তোমার প্রতি সমস্ত ভালবাসা এবং দীর্ঘ আলিঙ্গন। হ্যালো সুহানা খান!”

মি. খান বলেন তিনি দেখতে চান যে তার সন্তানরা নিজেদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য কাজ দিয়ে এগিয়ে যাবে।

“আমার অনেক ভাল বন্ধু আছে এবং তারা আমার বাচ্চাদের নিজেদের সন্তানদের মতই মনে করে- তারা সবাই ভীষণ খুশি এবং তাকে তারা সামনে নিয়ে আসতে চান…কিন্তু আমি সবসময় জোর দিয়েছি যে তাদের তারকা হিসেবে গড়ে তুলতে চাইনা। আমি চাই তারা যখন যথেষ্ট ভাল অভিনয় শিল্পী হয়ে উঠবে কেবল তখনই তাদের সকলের সামনে উপস্থাপন করতে।”

সুহানা তার লেখাপড়া চালিয়ে যেতে চান। নিজেকে একজন অভিনেত্রী হিসেবে তৈরি করার চেষ্টা শুরুর আগে ইউনিভার্সিটি যাওয়াই মূল কাজ। সাক্ষাতকারে সে আরও জানায়, তারা মা-বাবা তাকে পত্রিকার প্রচ্ছদের মডেল হওয়ার আগে অনেক লম্বা সময় নিয়ে এবং শক্তভাবে ভাবতে বাধ্য করেন।

তবে যখন বাবা-মা এই প্রস্তাবটি নিয়ে আসেন তখন খুব এক্সাইটেড হয়ে পড়েন সুহানা, জানান সে কথাও।

“আমি সরাসরি হ্যাঁ বলে দিতে চাইছিলাম, কিন্তু তারা চাইছিলেন আমি আরও ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত নিই।”

তবে সুহানাকে যেভাবে সামাজিক মাধ্যমে আক্রমণের মুখে পড়তে হচ্ছে তার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে তাকে সমর্থনে এগিয়ে এসেছেন অনেকে।

টুইটারে এমনই একজন লিখেছেন, “স্বজনপ্রীতি-এখানে দোষের কিছু নেই। আমার বাবা যদি অভিনেতা হতেন, আমি অবশ্যই একটি সুযোগ চাইতাম এবং এটা ভুল কিছু না। স্বজনপ্রীতি হয়তো এই শিল্পে লোকজনের প্রবেশ সহজ করে কিন্তু এরপর দিনশেষে প্রতিভাই তার হয়ে কথা বলে। সুহানা খানের জন্য শুভকামনা।”

ফটো-শুটে ছিলেন ফটোগ্রাফার এরিকোস অ্যান্ড্রু, তিনি মনে করেন সুহানা অনেকদূর পথ পাড়ি দেবে।।

তিনি লিখেছেন, সে ক্যামেরার সামনে যেভাবে স্বাভাবিক ও স্বাচ্ছন্দ্য ছিল সেটা সবাইকে অবাক করে দিয়েছে। এমন প্রতিভা খুব কমই তিনি পেয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com