সোমবার, ২০ অগাস্ট ২০১৮, ০১:২৮ পূর্বাহ্ন

সাকিব কেন এত বিতর্কিত?

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: বাংলাদেশের সর্বকালের সবচেয়ে বহুমাত্রিক ক্রিকেটারের নাম সাকিব আল হাসান। তর্কসাপেক্ষ হলেও সবাই একবাক্যে সাকিবের নামটিই উচ্চারণ করবে। একেক জনের কাছে সাকিব একেক রকম। কারও কাছে তিনি অহংকারী। আবার কারও কাছে তিনি দারুণ প্রাণোচ্ছ্বল ও আত্মবিশ্বাসে উদ্দীপ্ত ক্রিকেটার। পাশাপাশি তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগেরও অন্ত নেই। আবার ভালোবাসার ভাণ্ডারেও সঞ্চয়ও নেহায়েত কম নয়। কিন্তু কেন তাঁকে নিয়ে এত বিতর্ক, কেনই বা এত বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আছে তাঁর নামে?

বিতর্ক কখনই পিছু ছাড়েনি সাকিবের। বিভিন্নভাবে সমালোচনায় বিদ্ধ হয়েছেন এবং হচ্ছেন। আর সংবাদমাধ্যমের সঙ্গেও তাঁর সম্পর্ক কিছুটা অম্লমধুর। সাকিবের ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনগুলো অত্যন্ত একঘেয়ে হয়। তাঁর উত্তরগুলো হয় কাটা কাটা। স্রেফ সোজাসাপ্টা প্রশ্নের উত্তরগুলো দিয়ে চলে যান। ফলে সাংবাদিকদের লেখার তেমন একটা উপাদান তাতে পাওয়া যায় না বললেই চলে। মিডিয়াতে সাকিবের এমন বিরূপ একটা ইমেজ তৈরি হওয়ার পিছনে এটা বেশ বড় একটা কারণ।

পাশাপাশি মাঠের বাইরেও প্রশ্নবিদ্ধ সাকিবের নেতৃত্ব। অধিনায়কদের মাঠে যেমন সপ্রতিভ হতে হয়, তেমনি মাঠের বাইরেও হতে হয় দারুণ অনুপ্রেরণাদায়ী। তবে এটা একজন অধিনাকের জন্য গৎবাঁধা নিয়ম না হলেও অধিনায়কদের কাছ থেকে প্রত্যাশাটা এমনই থাকে। সেদিক থেকে সাকিব পিছিয়ে আছেন বলেই গুজব রয়েছে।

সাকিবের বিতর্কের পেছনে সবচেয়ে বড় হাত রয়েছে আমাদের সমর্থকদেরও। কোনো একভাবে সাকিবের দেখা পেয়ে গেলাম আমরা। তাহলে সেক্ষেত্রে আমাদের প্রথম বহিঃপ্রকাশটা অধিকাংশ সময়ই হয়- সাকিব, একটা সেলফি!

প্রথমত, অপরিচিতের সাথে দেখা হওয়ার পর শুরুতেই ‘সাকিব’ বলে সম্বোধনটা কতটুকু ভদ্রোচিত, সেটা প্রশ্নসাপেক্ষ। কিন্তু এই সেলফি তোলার বিড়ম্বনাও ঢের কম কিছু নয়। সবার সঙ্গে গ্রুপ সেলফি তুললে হবে না, তুলতে হবে সবার সঙ্গে আলাদা করে। তাতে সাকিব বিমানবন্দরের রিসেপশনে আছেন, নাকি রাস্তায়, নাকি হাসপাতালে, তাতে কারও কিছু যায় আসে না। সেলফি দরকার শুধু, তাতেই আমাদের চলে যায়। যান আমাদের আবদার মেটানোই সাকিবের দায়িত্ব!

আর এসবের ভিড়ে আমরা ভুলে যাই- সাকিব তারকা হলেও একজন রক্তমাংসের মানুষ। তাঁরও বিরক্তি প্রকাশ করার অধিকার আছে। তাই সাকিবকে ‘অহংকারী’ এবং ‘বেয়াদব’ ট্যাগ দিয়ে দেয়াটা ঠিক কতটুকু গ্রহণযোগ্য, ভেবে দেখবেন কি?


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com