বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ১২:৫২ পূর্বাহ্ন

রিয়ালের অর্ধেক দর্শক এখন জুভেন্টাসে

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে হারিয়ে যেন অনেক কিছুই হারিয়ে ফেলেছে রিয়াল মাদ্রিদ। রোনালদো স্বাভাবিকভাবেই দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ছিলেন। তিনি চলে যাওয়ার পর রিয়াল মাদ্রিদের খেলার মান কিছুটা হলেও কমেছে। খেলার মানের সঙ্গে সঙ্গে দর্শক উপস্থিতিও কমেছে জ্যামিতিক হারে। এমন অবস্থা দাঁড়িয়েছে দর্শক কমে যাওয়ার হার গত মৌসুমের দ্বিগুণ, যা গত ১০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম।

দানি কার্ভাহাল ও গ্যারাথ বেলের অসাধারণ নৈপুণ্যে গেটাফেকে ২-০ গোলে হারিয়ে শুভ সূচনা করে রিয়াল মাদ্রিদ। দারুণ এই জয়েও সান্তিয়াগো বার্নাব্যু দেখে হয়তো বোর্ড কর্মকর্তাদের চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াবে দর্শক উপস্থিতি। রোনালদোবিহীন দর্শকখরা শুরু হলো বলে।

মৌসুমের প্রথম ম্যাচে নিজেদের মাঠে দর্শক উপস্থিতি ছিল মাত্র ৪৮ হাজার ৪৬৬ জন। ২০০৮-০৯ মৌসুমে সান্তিয়াগো বার্নাব্যু দেখেছিল এরকম দর্শকখরা। সে সময় দর্শকখরার মূল কারণ ছিল পাঁচ ম্যাচ হারার বাজে রেকর্ড। যার মধ্যে ছিল এল-ক্লাসিকোতে মেসি ও থিয়েরি অরিদের কাছে জোড়া গোলে ৬-২ গোলের বিশাল ব্যবধানে হার।

পেপ গার্দিওলার অধীনে সে সময়ের বার্সেলোনার কাছে হেরে শিরোপা হারায় রিয়াল মাদ্রিদ। এরপরই মুলত শুরু হয় রোনালদো যুগ। ওই মৌসুমের পরই ট্রান্সফার ফি’র বিশ্বরেকর্ড গড়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে রোনালদোকে দলে ভেড়ায় রিয়াল মাদ্রিদ। ২০০৯ সালের জুন মাসে রিয়ালে যোগ দেন রোনালদো। এরপর টানা ৯ বছর রিয়ালের জার্সি গায়ে ৪টি চ্যাম্পিয়নস লিগ আর দু’বার লা লিগার শিরোপা জেতার স্বাদ গ্রহণ করেন এই পর্তুগিজ মহাতারকা।

রোনালদো জুভেন্টাসে পাড়ি দেওয়ার পর থেকেই দর্শক টানতে ব্যর্থ হচ্ছিল রিয়াল মাদ্রিদ। প্রাক ম্যাচ গুলোতে সেটা বেশ চোখে পড়েছে। বোর্ড কর্মকর্তারা অবশ্য ভেবেছিলেন লা-লিগা মৌসুম শুরু হলেও দর্শকখরা কেটে যাবে। কিন্তু মৌসুম শুরু পর পাঁচবারের ব্যালন ডি’র জেতা তারকার অনুপস্থিতি যে রিয়ালের টিকেট বিক্রির আয়ের উৎসের ওপর দারুণ প্রভাব ফেলবে সেটা হয়তো কেউ কল্পনাও করতে পারেনি।

অনেকেই ধারণা করেছিলেন রোনালদো চলে গেলেও রিয়াল মাদ্রিদ বিকপ্ল কোনো ব্যবস্থা করবে। দলে অন্য লিগের তারকা খেলোয়াড়কে দলে ভেড়াবে। অনেকেই ধারণা করেছিলেন নেইমার কিংবা চেলসির এডেন হ্যাজার্ডকে দলে ভেড়াবে মাদ্রিদ। কিন্তু মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই নিশ্চিত হওয়া গিয়েছে যে এই দুই মহাতারকার একজনকেও পাচ্ছে না রিয়াল। এতে অনেক দর্শকই হতাশ হয়ে পড়ে। যার ফলে আক্রমণভাগের আগেও সেই ধারটাও এখন নেই তাঁদের। মার্কো অ্যাসেনসিও, করিম বেনজেমা আর গ্যারেথ বেলের ওপর কোচ হুলেন লোপেতেগিকে ভরশা রাখলেও দর্শকদের নেই সেই ভরশা।

দর্শকখরা হয়তো তখনই কাটবে যখন রিয়াল মাদ্রিদ টানা ম্যাচগুলো জিতবে। সেই সঙ্গে পুরনো খেলোয়াড়দের মধ্যে কাউকে না কাউকে রোনালদোর দায়িত্ব নিজের ঘাড়ে তুলে নিতে হবে। বর্তমানে বেল যেভাবে ধারাবাহিক পারফরম্যান্স দিয়ে যাচ্ছেন সে হিসেবে তিনি রোনালদোর অভাব পূরণের যোগ্যদাবীদার। কিন্তু এটা ভুলে গেলেও চলবে না রোনালদোর ফ্যান সংখ্যাও নেহাত কম নয়। হয়তো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচগুলোতে দর্শকখরা কাটলেও অন্যান্য ম্যাচ গুলোতে এরকম দর্শকখরা থাকলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com