বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮, ০১:১১ পূর্বাহ্ন

কলেজ ছাত্র অনুজ হত্যাকাণ্ডে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সেক্রেটারিসহ ৩ জন আটক

এম,এ আহমদ আজাদ,নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামে চাঞ্চল্যকর কলেজ ছাত্র হত্যা মামলায় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক গৌতম কুমার দাশসহ ৩ জনকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন বিজ্ঞ আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে কলেজ ছাত্র অনুজ রায় হত্যা মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। উল্লেখ্য, ২০১৫ সনের ১২ নভেম্বর জগন্নাথপুর গ্রামের শচীন্দ্র দাশের ধানের গোলা থেকে সিলেট মদন মোহন বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি ২য় বর্ষের ছাত্র অনুজ কান্তি রায়ের (২১) মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় অনুজের পরিবারের দাবি ছিল এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।

নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের অখিল রায়ের ছেলে অনুজ সিলেট মদন মোহন কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তিনি সিলেটে হোস্টেলে থেকে লেখা পড়া করতেন। হত্যাকাণ্ডের কয়েক দিন পূর্বে বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন অনুজ। ওই বছরের ১১ নভেম্বর সিলেট যাওয়ার উদ্দেশ্যে নিজ বাড়ি থেকে রওয়ানা হন। পরদিন ১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় লোকজন অনুজের লাশ দেখতে পান ওই গ্রামের শচীন্দ্র দাশের ধানের গোলায়। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে এসে অনুজের মৃতদেহ সনাক্ত করেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অনুজের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে লাশ প্রেরণ করা হয়। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে একাধিক আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে নিহতের মা সবিতা রানী রায় বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। অনুজের পরিবারের লোকজনের দাবীর প্রেক্ষিতে একই গ্রামের সুখলাল দাশের ছেলে সুমন দাশকে আটক করে পুলিশ। পরে সুমনের স্বীকারোক্তি মতে নির্জন একটি স্থান থেকে নিহত অনুজ রায়ের কাপড়ের ব্যাগ এবং সুমনের মা নিয়তী রানী দাশ ও বোন শিল্পী রানী দাশের স্বীকারোক্তি মতে মানি ব্যাগ ও নগদ টাকা উদ্ধার ও ৩ জনকেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মামলাটি গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশীট দাখিল করলে বাদী পক্ষ নারাজি দেন। নারাজির প্রেক্ষিতে আদালত জুডিশিয়াল তদন্তের জন্য নির্দেশ দেন। জুডিশিয়াল তদন্তে উপজেলার বড় ভাকৈর (পশ্চিম) ইউপি আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোপেশ চন্দ্র দাশের ছেলে গৌতম কুমার দাশ, তার সহোদর গৌরিশ কুমার দাশ, গনেশ দাশের পুত্র গোপাল দাশসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেন। বিজ্ঞ আদালত প্রতিবেদন গ্রহণ করে আসামীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা ইস্যু করেন। গতকাল বৃহস্পতিবার গৌতম দাশ, গৌরিশ দাশ ও গোপাল দাশ সিঃ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শম্পা জাহান এর আদালতে হারি হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে বিজ্ঞ বিচারক তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এছাড়া হত্যাকাণ্ডের পর থেকে নিহত অনুজ রায়ের বন্ধু মামলার আসামী ইমন দাশ পলাতক রয়েছে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com