শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:২৪ অপরাহ্ন

বিনিয়োগে আগ্রহী থাই ব্যবসায়ীরা

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: বাংলাদেশের বিভিন্ন সম্ভাবনাময় খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী বলে জানিয়েছেন থাইল্যান্ডের ব্যবসায়ীরা। তারা জানান, নিকটতম প্রতিবেশী হিসেবে বাংলাদেশ থাই ব্যবসায়ীদের জন্য একটি আকর্ষণীয় গন্তব্য।

থাইল্যান্ড সরকারও বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্ক আরও উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে। ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বাস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) আয়োজনে সোমবার দু’দেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত এক আলোচনায় এসব কথা বলা হয়। এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন) এটি পরিচালনা করেন।

১৪ সদস্যের থাই প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন দেশটির ইন্টারন্যাশনাল ইন্সটিটিউট ফর ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইটিডি) নির্বাহী পরিচালক মানু সিথিপ্রাসাসানা। এছাড়াও প্রতিনিধি দলে থাই বিনিয়োগ বোর্ডের ঊর্ধ্বতন বিনিয়োগ প্রমোশন অফিসার আপিপং খুনাকর্নবোদিনতর উপস্থিত ছিলেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি জানান, দু’দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য এখনও সন্তোষজনক পর্যায়ে পৌঁছেনি।

তিনি বাংলাদেশ সরকারের আকর্ষণীয় বিনিয়োগ সুবিধা যেমন ট্যাক্স হলিডে, রফতানির ক্ষেত্রে শুল্কমুক্ত সুবিধা, কর্পোরেট কর ছাড়ের কথা উল্লেখ করে প্রতিনিধি দলকে সম্ভাবনাময় খাতগুলোতে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

থাইল্যান্ড প্রতিনিধি দলের নেতা মানু সিথিপ্রাসাসানা বলেন, বাংলাদেশ থাইল্যান্ডের ব্যবসায়ীদের জন্য অত্যন্ত আকর্ষণীয় একটি গন্তব্য। থাইল্যান্ড সরকারও এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিতে চায় বলে তিনি উল্লেখ করেন।

থাইল্যান্ডে শুল্কমুক্ত সুবিধা চায় বিজিএমইএ : এফবিসিসিআই’র সঙ্গে বৈঠক শেষে থাই ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দল তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় অংশ নেয়। সাক্ষাৎকালে উভয় দেশের প্রতিনিধিরা দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

বিজিএমইএ’র জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ফারুক হাসান, সহসভাপতি মোহাম্মদ নাছির ও পরিচালক মুনির হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

মোহাম্মদ নাছির পোশাক খাতের সবুজ শিল্প স্থাপনসহ নিরাপদ কর্মপরিবেশের অগ্রগতি তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশের পোশাক রফতানিকারকরা থাইল্যান্ডে পোশাক রফতানি করতে আগ্রহী। কিন্তু শুল্ক বাধার কারণে তা সম্ভব হয় না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com