সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩:০০ অপরাহ্ন

টাইগার উডসের পথে রোনাল্ডো?

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: আর্থিক দুর্নীতি ও ঘুষ কেলেংকারির ঝাপটা কীভাবে নাড়িয়ে দিয়েছিল ফিফাকে, নিশ্চয় তা মনে আছে সবার। একইভাবে নারী কেলেংকারিতে জড়িয়ে স্বর্গচ্যুত হয়েছিলেন মার্কিন গলফ কিংবদন্তি টাইগার উডস।

ঘর ভাঙার পাশাপাশি স্পন্সররাও মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল তার দিক থেকে। উডসের করুণ পরিণতিই কি অপেক্ষা করছে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর জন্য? উপসংহার টানার সময় এখনও আসেনি, কিন্তু লক্ষণ মোটেও সুবিধার নয়।

ভয়ংকর এক ঝামেলায় ফেঁসে গেছেন রোনাল্ডো। ক্যাথরিন মায়োরগা নামে যুক্তরাষ্ট্রের এক সাবেক মডেলের অভিযোগ, ২০০৯ সালে লাস ভেগাসের এক হোটেলে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড। সম্প্রতি রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে মামলাও করেছেন তিনি। নয় বছর আগের ঘটনাটি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসের পুলিশ নতুন করে তদন্ত শুরুর পর রোনাল্ডো বেশ কয়েকবার জোর গলায় অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

বলেছেন, ধর্ষণ বা যৌন হয়রানির মতো জঘন্য অপরাধ তিনি করতেই পারেন না। এ ব্যাপারে বান্ধবী জর্জিনা রদ্রিগেজ, ক্লাব জুভেন্টাস ও পর্তুগাল ফুটবল ফেডারেশনের পূর্ণ সমর্থন পাচ্ছেন সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার। কিন্তু আপনজনরা পাশে দাঁড়ালেও এ ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে রোনাল্ডোর অন্যতম প্রধান স্পন্সর প্রতিষ্ঠান নাইকি।

উডসের ক্ষেত্রে শুরুতে এমন উদ্বেগ প্রকাশের পর একে একে অনেক স্পন্সর প্রতিষ্ঠানই চুক্তি বাতিল করেছিল। নিজেদের পণ্যের বিক্রি বাড়াতেই মূলত তারকা খেলোয়াড়দের পেছনে কোটি কোটি ডলার বিনিয়োগ করে স্পন্সর প্রতিষ্ঠানগুলো। সেই খেলোয়াড়ের ভাবমূর্তি কোনো কারণে প্রশ্নবিদ্ধ হলে স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের পণ্য বিক্রিতেও নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এ মুহূর্তে রোনাল্ডোর সঙ্গে ১০০ কোটি ডলারের চুক্তি রয়েছে নাইকির।

চুক্তিটি আজীবনের। স্বাভাবিকভাবেই রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় নিজেদের বাণিজ্যক স্বার্থ নিয়ে ভীষণ উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্রের ক্রীড়া সামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। এক বিবৃতিতে নাইকি জানিয়েছে, ‘দুঃখজনক এই অভিযোগে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। এখন আমরা নিবিড়ভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করব।’

রোনাল্ডোর আরেক স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ইএ স্পোর্টসও প্রায় একই সুরে জানিয়েছে, ‘আমাদের প্রতিষ্ঠানের মূল্যবোধের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কিছু যাতে না ঘটে সেটা মাথায় রেখে আমরা নিবিড়ভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি।’ রোনাল্ডো অবশ্য মামলা ও পুলিশি তদন্ত নিয়ে একদমই উদ্বিগ্ন নন, ‘আমার বিবেক পরিষ্কার। তাই আমি ভয় পাচ্ছি না। এমনকি তদন্ত নিয়েও না।’

পর্তুগাল জাতীয় দলের পরের চারটি ম্যাচ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেও রোনাল্ডোকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছেন জাতীয় দলের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস ও ফেডারেশন সভাপতি ফার্নান্দো গোমেজ। রোনাল্ডোর বান্ধবী জর্জিনা রদ্রিগেজ ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘তুমি সব সময়ই সব বাধা অতিক্রম করেছ। এবারও তুমি জিতবে। অনেক ভালোবাসা রইল।’ বসে নেই রোনাল্ডোর বর্তমান ক্লাব জুভেন্টাসও।
দলের প্রাণভোমরার পাশে দাঁড়িয়ে টুইটারে এক বার্তায় নিজেদের অবস্থান জানিয়ে দিয়েছে তুরিনের বুড়িরা, ‘ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো গত কয়েক মাসে যে পেশাদারিত্ব ও নিবেদন দেখিয়েছে, তা অসাধারণ। জুভেন্টাসের সবাই এর প্রশংসা করে। প্রায় ১০ বছর আগে যে ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করা হচ্ছে সেই অপ্রমাণিত ঘটনায় আমাদের ধারণা ও অবস্থান বদলাচ্ছে না।’


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com