সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জের ১৪টি গ্রামে নেই প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত শিশুরা

নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: নবীগঞ্জ উপজেলার ১৪টি গ্রামে নেই কোনো প্রাথমিক বিদ্যালয়। গ্রামগুলোতে প্রাথমিক বিদ্যালয় না থাকায় শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অধিকাংশ শিশু। অপরদিকে, যেসব শিশু বিদ্যালয়ে পড়তে আগ্রহী তারাও বিদ্যালয় দূরে হওয়ায় প্রতিদিন স্কুলে যেতে চায় না। বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দূরত্ব বেশি হওয়ায় অভিভাবকরা তাদের ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠিয়ে চিন্তাগ্রস্থ থাকেন। তাই প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে গ্রামগুলোতে বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন অভিভাবকরা।

৫ বছর আগে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সারাদেশে বিদ্যালয়বিহীন গ্রামে ১৫শ’ বিদ্যালয় নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করে। এ প্রকল্পের আওতায় নবীগঞ্জের চারটি বিদ্যালয় নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এর মধ্যে তিনটি বিদ্যালয় চালু করা সম্ভব হয়েছে। প্রকল্পের শর্ত অনুযায়ী যে গ্রামে জনসংখ্যা দুই হাজারেরও বেশি, যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত প্রয়োজনীয় খাস জমি আছে কিংবা ভূমিদাতা হিসেবে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান রয়েছেন এবং দুই কিলোমিটারের মধ্যে কোন বিদ্যালয় নেই। ওইসব গ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হবে। উক্ত শর্তে আলোকে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস নবীগঞ্জ উপজেলার বিদ্যালয়বিহীন গ্রামের তালিকা তৈরী করে। প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের তালিকা অনুযায়ী নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর (পশ্চিম) ইউনিয়নের রামপুর পশ্চিমাংশ, সোনাপুর (দক্ষিণ পাড়া), আউশকান্দি ইউনিয়নের চৈতন্যপুর, কুর্শি ইউনিয়নের মধ্য এনাতাবাদ, মুসানগর, করগাঁও ইউনিয়নের কুড়িসাইন, সর্দারপুর, বাউসা ইউনিয়নের গহরপুর, নোয়াগাঁও, ভরপুর, ধুলচাতল, দেবপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিন হোসেনপুর, পানিউমদা ইউনিয়নের নোওয়াগাঁও (উত্তর) গ্রামগুলোতে এখন পর্যন্ত কোন প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপিত হয়নি।

নবীগঞ্জের এই ১৪টি গ্রামের সবটিতেই জনসংখ্যা দুই হাজারেরও বেশি আছে। প্রত্যেক গ্রামেই যোগাযোগ ব্যবস্থাও রয়েছে উন্নত এবং প্রয়োজনীয় খাস জমি যথেষ্ট আছে। এছাড়াও বিদ্যালয়ের জন্য জমি দান করতে ইচ্ছুক ভূমিদাতা ব্যক্তি আছেন অনেকেই।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জিয়াউল হক বলেন, নবীগঞ্জ উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ১৪টি গ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয় নেই। ইতিমধ্যে গ্রামগুলোর তালিকা তৈরী করা হয়েছে এবং কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com