রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৪৬ অপরাহ্ন

তরুণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিকাশে ২৩ জনের গ্রাজুয়েশন অর্জন

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: সারা দেশ থেকে আগত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ও জাতীয় পার্টির ২৩ জন তরুণ রাজনৈতিক নেতা ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের (ডিআই) তরুণ রাজনৈতিক বিকাশে ফেলোশিপ কর্মসূচির আওতায় গ্রাজুয়েশন অর্জন করলেন। আজ ৬ নভেম্বর রাজধানীর হোটেল ব্লসমে তরুণ রাজনৈতিক ফেলোবৃন্দের সার্টিফিকেট বিতরণে গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল।

২০১৮ সালের আগস্ট মাসে ফেলোশিপ কর্মসূচির ১১তম ব্যাচের কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এই কর্মসূচির আওতায় রাজনৈতিক ফেলোরা ঢাকায় গত ৪ মাস যাবৎ আবাসিক প্রশিক্ষণ পর্বে রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিকাশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেমন: ইতিবাচক গণতন্ত্র চর্চায় রাজনৈতিক দলগুলোর ভূমিকা, দলের আভ্যন্তরীণ গণতন্ত্র, ক্যাম্পেইন ম্যানেজমেন্ট, রাজনৈতিক যোগাযোগ, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন এবং কমিউনিটিতে সামাজিক আ্যডভোকেসি ইস্যুতে সফল কার্যক্রম সম্পাদনের মাধ্যমে ক্লাসরুমের তত্ত্বীয় জ্ঞানকে হাতে কলমে মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। দেশের তিনটি রাজনৈতিক দলের এই তরুণ রাজনৈতিক নেতারা একসাথে জেষ্ঠ্য রাজনৈতিক নেতাদের সাথে নিয়ে এডভোকেট হিসেবে তাদের নিজ নিজ জেলাতে জলাবদ্ধতা দূরীকরণ, ফলপ্রসূ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, উৎখাতকৃত হকারদের পুনর্বাসন, রাস্তা সংস্কার এবং সুষ্ঠু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করেছেন।

এই গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠানে তরুণ নেতারা দলের জেষ্ঠ্য নেতৃবৃন্দের কাছে বহুদলীয় পর্যায়ে তাঁদের এডভোকেসি উদ্যোগসমূহের সফলতার গল্প তুলে ধরেন। এছাড়া, বাংলাদেশে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন ও রাজনৈতিক সহনশীলতার সমর্থনে তাঁরা সহাবস্থানের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের চিফ অব পার্টি কেটি ক্রোক বলেন, ‘এই তরুণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিকাশে ফেলোশিপ কর্মসূচির এই ২৩ জন ফেলো আমার কাছে অনুপ্রেরণা । রাজনীতিতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে আগ্রহী তরুণ নেতারা সারা দেশের জন্য রোল মডেল হয়ে থাকবেন।’

২০১২ সাল থেকে জাতীয় ও তৃণমূল পর্যায়ের ২৫০ এরও বেশি তরুণ নেতৃবৃন্দ রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিকাশে ফেলোশিপ কর্মসূচির আওতায় গ্রাজুয়েশন অর্জন করেছেন। তরুণ ফেলোরা তাঁদের জেলায় স্থানীয় পর্যায়ে ১৫,০০০ এরও বেশি তরুণ কর্র্মীকে বিভিন্ন এডভোকেসি কার্যক্রম ও অন্যান্য কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত করেছেন। গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠানটি ইউএসএআইডি ও ইউকেএইড -এর যৌথ অর্থায়নে ও ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের বাস্তবায়নে দঝঃৎবহমঃযবহরহম চড়ষরঃরপধষ খধহফংপধঢ়ব রহ ইধহমষধফবংয’ প্রকল্পের অধীনে আয়োজিত হয়।

ইউএসএআইডি সম্পর্কে: ১৯৭১ সাল থেকে শুরু করে এই পর্যন্ত ইউএসএআইংিড -এর মাধ্যমে মার্কিন সরকার বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য ৬ বিলিয়নেরও বেশি সহায়তা প্রদান করেছে। ২০১৬ সালে ইউএসএআইডি বাংলাদেশকে ২০০ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি সহায়তা প্রদান করেছে যার মাধ্যমে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক সুযোগ, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ও এর চর্চা, পরিবেশের সুরক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে।

ইউকেএইড সম্পর্কে: যুক্তরাজ্য বিভিন্ন দেশে সুনির্দিষ্ঠ কার্যক্রমে সহায়তা প্রদান এবং গণতন্ত্র সহায়ক আন্তর্জাতিক পরিবেশ তৈরিতে অবদান রাখার মাধ্যমে সারা বিশ্বে গণতন্ত্রের জন্য কাজ করছে। তারা বিভিন্ন আ লিক সংগঠনের (ইইউ, এএইড, ওএসসিই, দি কাউন্সিল অব ইউরোপ এন্ড দি কমনওয়েলথ) গণতন্ত্র বিষয়ক কাজকে বেগবান করতে ভূমিকা রাখছে। – প্রেস বিজ্ঞপ্তি


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com