সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন

বাবার হেরে যাওয়া ও আমার আনন্দ

খায়রুন নাহার চৌধুরী (লাভলী)

খায়রুন নাহার চৌধুরী (লাভলী) :: আজ বাবাহীন আমার বাবা দিবস। বাবা তোমাকে দেখিনা কতো কাল! তোমার ঘ্রাণ এখনও নাকে লাগে আতরের মতো। এই ঘ্রাণ আমাকে বার বার ফিরিয়ে নিয়ে যায় আমার ছেলেবেলায়। তখন তুমি আমার খেলার সাথী । ব্যাডমিন্টন আর দাবাটা, তোমার কাছেই ছিল আমার হাতেখড়ি । ইচ্ছে করে হেরে যেতে দাবার চালে। আর আমি জিতে গিয়ে চিৎকার করে বলতাম, “আজ বাবাকে হারিয়ে দিয়েছি!” ঠিক তখুনি দেখতাম তোমার মুখ টিপে মুচকি হাসি । তোমার চোখে খুশীর ঝিকিমিকি । আজ বুঝি কেনো ইচ্ছে করে বাবারা হেরে গিয়ে আনন্দে হাসেন । গায়ের রঙটা আমার চাঁপা ছিল বলে সবাই বলতো,মেয়েটার চেহারার গড়ন ভালো ,কিন্তু বাপ মায়ের রঙ পায়নি। তুমি তখন মুখের উপর বলে দিতে,” এটা আমার সবচেয়ে রূপবতী মেয়ে ।” আমি তখন গায়ের রঙের জন্য মন খারাপ করে থাকতাম, আর মনে মনে ভাবতাম “ইস্, সিন্ড্রারেলার মতো যদি একজন জাদুর বুড়ি পেতাম, তাহলে আমিও দুধে আলতা রঙের হয়ে যেতাম!” তুমি কি করে যেনো আমার মন খারাপের কারণ বুঝে যেতে! কখনও ঠাকুর মার ঝুলি,কখনও রুশ দেশের উপকথা, কখনও রঙ পেন্সিল, কখনও ববি ক্লিপ হাতে দিয়ে বলতে,আমার মেয়েটার রঙ হলো “ছায়ামায়া “। এটাকি সবাই বুঝে? আমিও কিন্তু আজও বুঝিনি বাবা ,”ছায়ামায়া ” রঙটা কি তবে তোমার তৈরী করা কোনো ভালোবাসার রঙের নাম ? কৈশোরে আমি ছিলাম তোমার রেডিও আর টেলিভিশনের খবর শুনার সাথী। বিবিসি, ভয়েস অব আমেরিকা, রেডিও বেইজিং, আকাশবাণী সর্বশেষ বাংলাদেশ টেলিভিশন । মা সহ সবাই যখন বিরক্ত হয়ে যেতো,তোমার এই একের পর এক খবর শুনবার অভ্যাসটাতে ।আমি কেনো যেনো খুব মজা পেতাম! জানো বাবা, প্যালেস্টাইন আর ইজরায়েলের যুদ্ধ এখনও থামেনি!😥এসব খবর শুনতে আর রেডিওর নব ঘোরাতে হয় না । ইন্টারনেটে মূহুর্তের সব খবর পেয়ে যাই । তুমি জানো না,ফেইসবুক, টুইটার এসব সামাজিক মাধ্যমে এখন সত্য মিথ্যা খবরের ছড়াছড়ি । মাঝে মাঝে যখন বলতাম, বাবা আজ স্কুলে যেতে ইচ্ছে করছে না ,কখনও আবদারটা আরো বড় হতো,”বাবা প্রস্তুতি নেই,পরীক্ষা দিবো না।” তুমি বলতে” স্কুলে যেতে ইচ্ছে না করলে যাওয়ার দরকার নেই, আর পরীক্ষা তো জীবনে অনেক দিবে,দুই একটা ছোটখাটো পরীক্ষা বাদ দিলে এমন মহাভারত কিছু অশুদ্ধ হবে না।তোমার মাকে ম্যানেজ করতে হবে,এটাই সমস্যা! আজ স্কুল কামাই দিয়ে বরং বাপ বেটি মিলে দাবা খেলবো আর বিকেলের দিকে পিথাগোরাসের থিওরি নিয়ে একটু আলোচনা করবো। থিওরিটা আজো আমার মনে আছে “একটি সমকোনী ত্রিভুজের অতিভুজের উপর অঙ্কিত বর্গক্ষেত্র ওপর দুই বাহুর উপর অঙ্কিত বর্গক্ষেত্রর সমষ্টির সমান ।”

আর আজ আমি চিন্তাও করতে পারি না, মেয়ে ক্লাস কামাই দিবে অথবা পরীক্ষা দিবে না! আমরা আজকালকের মা বাবারা তোমাদের মতো উদার হতে পারলাম না । টাকা চাইলে বলতে ,পকেট থেকে নিয়ে যাও,কত নিলে বলে যেও,তোমার মাকে হিসেব দিতে হবে । 😊

বাবা, মা এখন সব হিসেব নিকেশ ভুলে গেছেন । টাকা হাতে দিলে বিলিয়ে দেন। কাকে কতো দিলেন ,মনে রাখতে পারেন না ।এক সময় যিনি তোমার সংসার হিসেব নিকেশ করে গুছিয়ে রেখেছিলেন, আজ তুমি ছাড়া সব এলোমেলো ।😥
আমার কাছে বাবা দিবস বলে আলাদা কিছু নেই।আমার বাবা দিবস হলো, আমার খুব আনন্দের দিনগুলো আর খুব মন খারাপের দিনগুলো ।যখন তোমাকে খুব মনে পড়ে, কি করি জানো? তোমার অতি প্রিয় আর দিনে আঠারো ঘন্টার সঙ্গী মোটা কাঁচের চশমাটা যত্ন করে মুছি, ওটাতে চুমু খাই আবার রেখে দেই। তোমার টুপিটা না ধুয়ে রেখে দিয়েছি, যদি তোমার গন্ধ চলে যায় এই ভয়ে।সবাই বলে এটা নাকি ন্যাপথ্যালিনের গন্ধ ।আচ্ছা বাবা ওরা কেনো তোমার গন্ধ পায় না? আমি তো পাচ্ছি, এই যে দেখো, তোমার টুপি হাতে নিয়ে বসে আছি ।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com