বড়লেখায় গৃহবধূর সততার দৃষ্টান্ত!

../news_img/27017 mri n u.jpg

লিটন শরীফ, বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় কুঁড়িয়ে পাওয়া স্বর্ণালঙ্কার প্রকৃত মালিকের কাছে ফিরিয়ে দিয়ে সততার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন এক গৃহবধূ। ওই গৃহবধূর নাম মাবিয়া আক্তার মুক্তা (২৮)। তিনি উপজেলার গাংকুল গ্রামের বাসিন্দা শহিদুল ইসলামের স্ত্রী।

জানা গেছে, গত বুধবার (১৩ এপ্রিল) বিকেলে বড়লেখা পৌর শহরের আব্দুল আলী ট্রেড সেন্টারের সামনে কাগজে মোড়ানো একটি পুটলি দেখতে পান মুক্তা। হাতে নিয়ে পুটলিটি খোলার পর এতে পৌনে তিন ভরি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন পান । এরপর তা প্রকৃত মালিকের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার প্রতিজ্ঞা করেন মুক্তা। বাড়িতে ফিরে বিষয়টি তিনি তাঁর স্বামী শহিদুল ইসলামকে জানান। মুক্তার স্বামী শহিদুল ইসলাম চেইন পওয়ার বিষয়টি বড়লেখা হাজীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ি সমিতির সাধরণ সম্পাদক ছাদ উদ্দিনকে জানান। পরে চেইনের প্রকৃত মালিককে পেতে উপজেলা জুড়ে মাইকিং করানো হয়।

মাইকিংকের মাধ্যমে খবর জানতে পারেন চেইনের প্রকৃত মালিক পপি বেগম। খবর পেয়ে তিনি হাজীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ি সমিতির সাধারণ সম্পাদকের সাথে যোগাযোগ করেন। (১৫ এপ্রিল) শুক্রবার সন্ধ্যায় বাজার ব্যবসায়ি সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছাদ উদ্দিনের উপস্থিতিতে পপি বেগমের হাতে স্বর্ণের চেইনটি তুলে দেন মাবিয়া আক্তার মুক্তা। 

বড়লেখা হাজীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ি সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছাদ উদ্দিন চেইনের প্রকৃত মালিকের কাছে হস্তান্তরের সত্যত্য নিশ্চিত করে জানান, চেইনটির মূল্য প্রায় ১ লাখ টাকা। চেইনটি পাওয়ার পর প্রকৃত মালিকের কাছে ফিরিয়ে দিয়ে মাবিয়া আক্তার মুক্তা সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।