সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া পত্নী আসমা কিবরিয়ার কুলখানি অনুষ্ঠিত

../news_img/asma kibria n.jpg

মৃদুভাষণ রির্পোট ::সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার স্ত্রী  বিশিষ্ট চিত্র শিল্পি আসামা কিবরিয়ার কুলখানি গুলশানস্থ আজাদ মসজিদে  আজ ১৩ নভেম্বর শুক্রবার বাদ আসর  অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কুলখানি ও মিলাদ মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন সংস্থাপন মন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক, ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, পিএসসি চেয়ারম্যান একরাম আহমেদ, সাবেক মন্ত্রী দিপু  মনি , শসসের মবিন চৌধুরী, কিবরিয়া পরিবারের সদস্যবৃন্দ, আত্মীয় স্বজন ও শুভাকাংখিরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য বাংলাদেশের চিত্রশিল্পের অনন্যসাধারণ ও বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন আসমা কিবরিয়া। ১৯৩৭ সালে জন্ম নেওয়া আসমা নিউইর্য়কে উন আর্ট স্কুল ও ওয়াশিংটনের কোরকোরান স্কুলে চিত্রকলা নিয়ে পড়াশোনা করেন। সেখান থেকেই চিত্রকলার প্রতি আকৃষ্ট হন।  তিনি ওয়াশিংটনে সমসাময়িক মার্কিন শিল্পীদের সঙ্গে কাজের সূত্র ধরে বিমূর্ত ধারার চিত্রকলায় প্রভাবিত হন । তার কাজ নিয়ে ব্যাংককসহ বিভিন্ন শহরে এ পর্যন্ত অসংখ্য একক প্রদর্শনী হয়েছে। মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তাঁর ১১টি একক চিত্র প্রদর্শনী হয়েছিল।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদরের বৈদ্যেরবাজারে এক জনসভা শেষে ফেরার সময় গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের নেতা শাহ এ এম এস কিবরিয়া। কিবরিয়া হত্যা মামলার সম্পূরক অভিযোগপত্র নিয়ে আসমা কিবরিয়ার আপত্তি ছিল। অর্থমন্ত্রী কিবরিয়ার হত্যার বিচারের দাবিতে ‘শান্তির জন্যে নীলিমা’ নামের এক ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ কর্মসূচির সূচনা করেছিলেন তিনি। কিন্তু স্বামী হত্যার বিচার দেখার আগেই চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

 আসমা কিবরিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ৯ নভেম্বর ২০১৫ সোমবার রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। আসমা কিবরিয়ার জন্ম ১৯৩৭ সালে। তিনি বাংলাদেশের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার সহধর্মিনী ছিলেন। ছেলে রেজা কিবরিয়া একজন অর্থনীতিবিদ এবং মেয়ে নাজলী কিবরিয়া বস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের চেয়ারম্যান। গুলশান আজাদ মসজিদে প্রথম জানাযা এবং বনানী কবরস্থানে ২য় জানাযা শেষে  স্বামী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার কবরের পাশে দাফন করা হয় বরণ্যে এই শিল্পিকে।