মাধবকুন্ডে নিষেধাজ্ঞায় রাস্তা থেকে ফিরেছেন পর্যটক, লোকসানে ব্যবসায়ীরা

../news_img/52952 mri nu.jpg

লিটন শরীফ, বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :: প্রতিবছর ঈদ-উল-ফিতরের ছুটিতে মৌলভীবাজারের বড়লেখার মাধবকু- জলপ্রপাতে হাজার হাজার পর্যটকের সমাগম ঘটে। এতে ইজারাদার ও স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি ফুটে ওঠে। সারা বছরে দু’টি ঈদকে উপলক্ষ করে ব্যবসায়ীরাও দোকানে মালামাল তুলেন। এবারের ঈদে ভালো বিকিকিনি হবে, এমন আশায় বুক বেঁধেছিলেন ব্যবসায়ীরা। সেই আশায় ব্যবসায়ীরা ধার-দেনা করে নতুন মালামাল তুলে ছিলেন। কিন্তু রাস্তা ও টিলায় ধসের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় মাধবকুন্ড জলপ্রপাত পর্যটনকেন্দ্র অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করায় তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। ব্যবসায়ীদের পাশা পাশি আর্থিক লোকসান গুনতে হচ্ছে ইজারাদারদেরও।

সাম্প্রতিক ভারি বর্ষণে মাধবকু-ের টিলা ও রাস্তা দেবে যাওয়ায় ‘জননিরাপত্তা ও পর্যটকদের প্রাণহানী এড়াতে প্রশাসন গত বৃস্পতিবার (২২ জুন) থেকে মাধবকু- জলপ্রপাতে পর্যটক প্রবেশে অনির্দিষ্টকালের নিষেধাজ্ঞা জারি করে। ফলে গত কয়েকদিন থেকে অনেক দূর-দুরান্ত থেকে মাধবুক- জলপ্রপাতে বেড়াতে আসা পর্যটকরা ফিরে গেছেন প্রধান ফটক থেকেই। মাধবকু- এলাকা পর্যটক শূন্য থাকায় লোকসানের মুখে পড়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

এদিকে, ঈদের দিন সোমবার (২৬ জুন) বিকেলে দ্রুত মাধবুক- পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়ার দাবীতে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। ঈদের দিন সোমবার সহস্রাধিক পর্যটক মাধবকু-ে এসেছিলেন। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার কারণে জলকন্যা মাধবকু- না দেখে প্রধান ফটক থেকেই তাদের ফিরতে হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ জুন) স্থানীয় কাঁঠালতলী বাজার থেকেই পর্যটকরা ফিরত গেছেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, পর্যটন পুলিশের পক্ষ থেকে আগত পর্যটকদের জলপ্রাপত এলাকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ও তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি অবহিত করতে। জলপ্রাপাতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জেনে হতাশা নিয়ে ফিরতে পর্যটকদের ফিরত যেতে দেখা গেছে।

মঙ্গলবার সিলেট থেকে মাধবকু-ে বেড়াতে আসেন কলেজ শিক্ষার্থী হোসাইন আহমদ, কামাল আহমদ, ফাহিম আহমদ, আমিনুল ইসলাম। বন্ধুরা মিলে জলপ্রাপাত দর্শনে এসেছিল তারা। নিষেধাজ্ঞার কারণে ভেতরে তাদের আর যাওয়া হয়নি। কথা হয় তাদের সঙ্গে। তারা বলেন, ‘ঈদের ছুটিতে আশা করে বন্ধুরা মিলে মাধবকু-ে বেড়াতে এসেছিলাম। কিন্তু পুলিশ সদস্যরা জানিয়েছেন জলপ্রাপাতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই ফিরে যাচ্ছি।’ তাদের মত এদিন প্রায় দুই সহ¯্রাধিক পর্যটক ফিরে গেছেন।

এছাড়া পর্যটক না থাকায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরাও অলস সময় পার করছেন। স্থানীয় ব্যবসায়ী গ্রামীণ রেস্টুরেন্টের স্বত্বাধিকারী সাইদুল ইসলাম বলেন, ‘গত ঈদে প্রতিদিন কম হলেও ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা বিকিকিনি হতো। কিন্তু এবার অবস্থা খুব খারাপ।’ তিনি ক্যাশ খুলে দেখালেন সারা দিনে মাত্র ১’শ টাকা বিক্রি করেছেন।’

 গ্রামীণ রেস্টেুরেন্টের পাশের দোকান মীম ঝিনুক এন্ড কসমেটিক্সের দোকানে প্রবেশ করে ক্রেতা শূন্য দেখা গেল। কর্মচারীরা আড্ডা-গল্পে ব্যস্ত। এ দোকানে কর্মচারীর কাজ করেন জাহেদ আহমদ ও এবাদ আহমদ। তারা বলেন, ‘দোকান মালিক এ বছর প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ টাকার মালামাল তুলেছেন। সারাদিনে প্রায় ১ হাজার টাকা বিক্রি হয়েছে। তারা আরও বলেন, ‘দোকানে আমরা মোট ১৬ জন কর্মচারী কাজ করি। কিন্তু মাধবকু-ে পর্যটক না আসায় তারা মাত্র ছয়জন দোকানে কাজ করছেন। বিকিকিনি না থাকায় বাকিরাও আসেনি।’ 

এছাড়া স্থানীয় ব্যবসায়ী জামাল উদ্দিন, এমরান হোসেন, শামীম আহমদ, আলী হোসেন, স্বপন আহমদ, আবুল হোসেন, হেলাল উদ্দিন, বেলাল আহমদ জানান, মাধবকু-ে সবমিলেয়ে মোট ৬০টি দোকান রয়েছে। সারা বছরে ঈদের ছুটিতে বিকিকিনি একটু ভালো হয়। এবছর তারা বিকিকিনি ভালো হওয়ার আশায় দোকানগুলোতে লাখ লাখ টাকার মালামাল তুলেছিলেন। কিন্তু মাধবকু-ে পর্যটক না আসায় তারা মন্দা সময় কাটাচ্ছেন। তারা মাধবকু- জলপ্রাতের রাস্তা দ্রুত মেরামত করে গেট খুলে দেয়ার জোর দাবী জানান। 

এ ব্যাপারে মাধবকু- পর্যটন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গির আলম বলেন, ‘জননিরাপত্তা ও পর্যটকদের প্রাণহানী এড়াতে বন বিভাগ জলপ্রপাত এলাকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। পর্যটন কেন্দ্রে প্রবেশের প্রধান ফটক ছাড়াও কাঁঠালতলী বাজারের সামনে পর্যটকদের সতর্ক করে বন বিভাগের পক্ষ থেকে ব্যানার টাঙানো হয়েছে। জননিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে পর্যটকদের আমরা জলপ্রাপত এলাকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ও তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি অবহিত করছি।’ 

বনবিভাগের স্থানীয় কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ঈদ উপলক্ষে শ্রমিক না থাকায় সংস্কার কাজ বন্ধ রয়েছে। কাজ শেষে অভ্যন্তরীণ রাস্তা পর্যটকের চলাচলের উপযোগী করেই ইকোপার্কের গেট খুলে দেওয়া হবে।’

ইজারাদার জুনেদে আহমদ ও রিফাত আহমদ বলেন, ‘বনবিভাগ ইকোপার্ক থেকে বছরে ৩০-৩৫ লাখ টাকা রাজস্ব আয় করছে। ঈদের আগে ও পরে ১০-১৫ দিন হাজার হাজার পর্যটক আনন্দ উপভোগে এখানে প্রকৃতির সান্নিধ্যে ছুটে আসেন। ১৫ দিন আগের বর্ষণে রাস্তায় সামান্য ফাটল আর অল্প দেবে যাওয়া মেরামতে বনভিবাগ চরম উদাসীন। দেশের দূরদুরান্তের পর্যটকের দুর্ভোগের কথা তারা মোটেও চিন্তা করেনি। কোন পূর্ব প্রস্তুতি নেয়নি। বর্ষাকালে অতীতেও মাধবকু-ের রস্তা-ঘাট বিধস্ত হয়েছে। কিন্তু ইকোপার্ক বন্ধ করার ঘটনা ঘটেনি। তারা অবিলম্বে পর্যটকের জন্য মাধবকু-ের তালা খুলে দেয়ার পাশাপাশি তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য ইজারার মেয়াদ বৃদ্ধিরও দাবী জানান।’

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক ভারি বর্ষণে মাধবকু- ইকোপার্কের সড়কের পর্যটন রেস্তোরাঁ এলাকার কাছে প্রায় ৪০ ফুট জায়গা প্রায় দুই ফুটের মতো নিচের দিকে দেবে যায়। তা ক্রমশই দাবছে। এছাড়া রোস্তারাঁর কাছে উপরে উঠার সিঁড়ির বামপাশের নিচের প্রায় ৪০ ফুট এবং জলপ্রপাতের কাছে নামার সিঁড়ির ডান পাশের নিচের প্রায় ৩০ ফুটের মতো জায়গার মাটি সরে গেছে। এতে ইকোপার্কের সড়ক ও সিঁড়ি দুটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠেছে। ফলে মাধবকুন্ড জলপ্রপাত এলাকাটি পর্যটকদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠায় অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনা এড়াতে স্থানীয় প্রশাসন গত বৃস্পতিবার (২২ জুন) থেকে মাধবকু-ে পর্যটক প্রবেশ বন্ধ করে দেয়। এরপর থেকে নিস্তব্ধ হয়ে পড়ে দেশের অন্যতম পর্যটন এলাকা মাধবকু-।