স্বামী-শাশুড়ির অত্যাচারে মা-ছেলের আত্মহত্যার চেষ্টা

../news_img/53647 mri nu.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলায় স্বামী,শাশুড়ি ও ননদদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ৯ মাসের শিশু সন্তানসহ বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন লায়লা (২৫) নামের এক গৃহবধূ।

বুধবার বিকালে সিংগাইর পৌর এলাকার কাংশা মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, কাংশা মহল্লার গাজম মুন্সীর ছেলে কাইয়ুম মুন্সী শ্যামলের সঙ্গে দু'বছর আগে উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের মৃত আবদুল খালেকের মেয়ে লায়লার বিয়ে হয়। গত ৯ মাস আগে তাদের ঘরে পুত্র সন্তান জন্ম নেয়।

প্রতিবেশীরা জানান, বিয়ের পর থেকেই পারিবারিক কলহের জের ধরে শ্যামল, তার মা মমতাজ (৬৫), বোন শিরীন (৩০) ও শাপলা (২৬) গৃহবধূ লায়লাকে বিভিন্ন সময় অত্যাচার করত।

বুধবার সকালে শ্যামল ও তার মা লায়লাকে বেধড়ক মারধর করে। এতে অতিষ্ঠ হয়ে ওইদিন বিকালে ৯ মাসের শিশুপুত্র আহাদকে নিয়ে বিষ মেশানো খাবার খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন লায়লা।

মা ও ছেলের চিৎকারে প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। শিশুটির অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকাস্থ শিশু হাসপাতালে পাঠান।

তবে গৃহবধূ লায়লার ভাই সেন্টুর দাবি, শ্যামল ও তার পরিবারের লোকজন খাবারের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে আমার বোন ও তার সন্তানকে হত্যার চেষ্টা করে।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহমুদা সুলতানা সাকি বলেন, আমাদের হাসপাতালে বিষ খাওয়া শিশুটির চিকিৎসার সুব্যবস্থা না থাকায় তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তবে শিশুটির মায়ের চিকিৎসা চলছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, লায়লাকে বিয়ের আগে শ্যামল জনৈক মঞ্জুরি আক্তারকে বিয়ে করেন। ওই ঘরে ৫ বছর বয়সের কন্যাসন্তান রয়েছে তার। লায়লার মত পূর্বের স্ত্রীকেও অত্যাচার করত শ্যামল ও তার পরিবার। এ নিয়ে জেল-হাজতের শিকার হন শ্যামল। মোটা অংকের টাকা জরিমানা দিয়ে আগের স্ত্রীকে ডিভোর্স দেন তিনি।

এ দিকে অভিযুক্ত শ্যামল ও তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। তাদের মোবাইলফোনও বন্ধ পাওয়া যায়।

সিংগাইর থানার ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন বলেন, ঘটনাটি শুনে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম, মামলার প্রস্তুতি চলছে।