২২ লাখ টাকা নিয়ে পালানো ব্র্যাক কর্মকর্তা জেলহাজতে

../news_img/ARREST.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: নওগাঁর সাপাহারে গ্রাহকদের ঋণের ২২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও ব্র্যাকের ঋণদান কর্মসূচির এরিয়া ম্যানেজার রায়হেন উদ্দিনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে কুষ্টিয়া জেলা সদর থেকে ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে সাপাহার থানায় নিয়ে আসে। এরপর শুক্রবার তাকে আদালতের মাধ্যমে নওগাঁ জেল হাজতে পাঠানো হয়।

ভূক্তভোগী গ্রহক ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সাপাহার ব্র্যাক ব্রাঞ্চের ওই এরিয়া ম্যানেজার ও ঋণের টাকা বিতরণকারী আমির চান দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঋণের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন।

এ সুবাদে প্রায় সব গ্রাহকের কাছে পরিচিত ও বিশ্বাসী  হয়ে ওঠেন। আর এ সুযোগ নিয়ে সম্প্রতি তারা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার প্রায় ৬০ জন গ্রাহককে মোটা অংকের টাকা ঋণ পাইয়ে দেয়ার কথা বলে ৫০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা করে নেন। এতে প্রায় সাড়ে ২২ লাখ টাকা তারা সংগ্রহ করেন।

এরপর কোন ঋণ গ্রহিতার কিস্তির সঙ্গে দু’একবার তাদের ভাগের কিস্তির টাকাও পরিশোধ করেন। এর মধ্যে হঠাৎ করে তারা দু’জন গত ২৭মে কর্মস্থল ব্র্যাক অফিস থেকে উধাও হয়ে যান।

দীর্ঘদিন তাদের অনুপস্থিতে কর্তৃপক্ষ ওই পদে অপর দু’জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগ দেয়। ওই এলাকায় ঋণের কিস্তির টাকা আদায় করতে গেলে বিষয়টি জানাজানি হয়।

ওই কর্মকর্তা ও কর্মচারী না এলে কিস্তির টাকা পরিশোধ করবে না বলে জানিয়ে দেয় ঋণ গ্রহিতারা। নিরূপায় হয়ে সাপাহার ব্র্যাকের পক্ষে নওগাঁ ব্র্যাকের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক শ্রী কৃষ্ণকমল ভট্টাচার্য গত ২০জুন পালিয়ে যাওয়া কর্মকর্তা ও কর্মচারীর বিরুদ্ধে স্থানীয় থানায় মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ গত ১৩ জুলাই বিকালে কুষ্টিয়া জেলা সদর থেকে ডিবি পুলিশের মাধ্যমে টাকা আত্মসাৎকারী এরিয়া ম্যানেজার রায়হেন উদ্দীনকে আটক করে সাপাহার থানায় নিয়ে আসে।

এরপর পুলিশ এলাকার ভূক্তভোগী ঋণ গ্রহিতাদের কাছ থেকে জবানবন্দি শুনে অভিযুক্ত ব্যবস্থাপক রায়হেন উদ্দীনকে নওগাঁ জেলহাজতে পাঠায়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাপাহার ব্র্যাক ব্রাঞ্চের অফিসার মিজানুর রহমান কোনো মন্তব্য না করে কৌশলে এড়িয়ে যান।