মেয়ের গর্ভপাত করাতে আদালতের দ্বারস্থ বাবা-মা

../news_img/55114mmn.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: ভারতের মুম্বাই শহরে ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরীর পিতা-মাতা তাদের কিশোরী কন্যার গর্ভপাতের অনুমতির জন্য আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন।

১৩ বছর বয়সী সে কিশোরী এখন ৩০ সপ্তাহের গর্ভবতী। ভারতের আইন অনুযায়ী ২০ সপ্তাহের গর্ভবতী পর্যন্ত গর্ভপাত করাতে পারে। তবে সেক্ষেত্রে যদি মায়ের জীবন হুমকির মুখে থাকে তাহলে গর্ভপাতের অনুমতি দেয়া হয়।

সে কিশোরীর বাবা-মা যখন তাকে স্থূল দেহের চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায় তখন জানা যায় সে সন্তান সম্ভবা। তার বাবার বন্ধুর দ্বারা সে ধর্ষণের শিকার হয়েছিল বলে সে কিশোরী অভিযোগ।

মেয়ের গর্ভবতী হবার বিষয়টি তার বাবা-মা আগে থেকে বুঝতেই পারেন নি। তার বাবা-মা প্রথমে ধারণা করেছিল তাদের মেয়ে হয়তো থাইরয়েড সমস্যায় আক্রান্ত। কারণ মেয়েটির ওজন বেড়ে যাচ্ছিল।

মেয়েটির শারীরিক অবস্থা যাচাই-বাছাই করে ডাক্তার গর্ভপাতের জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ ডাক্তার মনে করেছে তার গর্ভাবস্থা আরো দীর্ঘায়িত হলে মেয়েটির জীবন হুমকির মুখে পড়তে পারে।

এর আগে ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় জেলা চণ্ডীগড়ে ১০ বছর বয়সী এক কিশোরীর ধর্ষণ এবং সন্তান জন্মদানের ঘটনা প্রকাশিত হবার কয়েক দিনের মাথায় ১৩ বছর বয়সী আরেক কিশোরী ধর্ষণ ও গর্ভবতী হবার খবর এসেছে।

১০ বছর বয়সী সে শিশুকে গর্ভপাতের অনুমতি দেয়নি আদালত। কারণ চিকিৎসকদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, গর্ভবতী হবার পর সে শিশুর ৩২ সপ্তাহ পার হয়েছিল। ফলে তাকে গর্ভপাত করানো হলে মৃত্যুর ঝুঁকি হতো বলে চিকিৎসকরা আদালতে প্রতিবেদন দেয়। সে পরিপ্রেক্ষিতে আদালত গর্ভপাতের অনুমতি দেয়নি।

সম্প্রতি ভারতে ধর্ষণের পর গর্ভবতী হবার ঘটনায় গর্ভপাতের অনুমতি চেয়ে আদালতের অনুমতি প্রার্থনার বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে।