সু চির সঙ্গে ট্রুডোর ফোনালাপ, গভীর উদ্বেগ

../news_img/55497mmri iu.jpg


মৃদুভাষণ ডেস্ক::মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর হামলা এবং তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় দেশটির নোবেল জয়ী ও ডি ফ্যাক্টো নেতা অং সান সু চির সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো।

বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) অং সান সু চির সঙ্গে ফোনালাপে রোহিঙ্গা সংকটে নৈতিক ও রাজনৈতিক নেতা হিসেবে সু চির ভূমিকার ব্যাপারে গভীর নিন্দা প্রকাশ করেন ট্রুডো।

ট্রুডো টুইটারে লিখেছেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ব্যাপারে কানাডার গভীর উদ্বেগ জানাতে আমি আজ (বুধবার) অং সান সু চির সঙ্গে কথা বলেছি।’

ফোনালাপের পর কানাডার প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চলমান সহিংসতা বন্ধ এবং বেসামরিক লোকদের রক্ষায় মিয়ানমারের সামরিক ও বেসামরিক নেতাদের প্রতি জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ট্রুডো। সেইসঙ্গে জাতিসংঘ ও মানবাধিকার সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিদের দেশটিতে প্রবেশ করার অনুমতি দেয়ারও আহ্বান জানান তিনি।

সু চিকে কানাডার সরকারপ্রধান সকল সংখ্যালঘুর অধিকার রক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন। ২০০৭ সালে কানাডা সু চিকে যে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব প্রদান করেছিল, ট্রডোফোনের মাধ্যমে যেন সে কথাটিও স্মরণ করিয়ে দিলেন।

এছাড়া রোহিঙ্গা ইস্যুতে চলতি সপ্তাহের শুরুতে কানাডার নিউ ডেমোক্রেট দলীয় দুই সদস্য সু চি সরকারের কড়া সমালোচনা করেন। হেলেন লাভেরডিয়ের ও চেরিল হার্ডক্যাসল নামের ওই সদস্যরা বলেন, ‘সু চির ভূমিকা অগ্রহণযোগ্য এবং সম্পূর্ণ হতাশাজনক।’

এদিকে সু চি বলছেন, তার সরকার ‘বিদ্রোহী’দের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। এমনকি চলতি মাসে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে যোগ না দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও দেশটির সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধদের হামলার শিকার হয়ে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে। এছাড়া হামলা, বাড়ি-ঘরে আগুন এবং নদী পাড়ি দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় কয়েকশ রোহিঙ্গা মারা গেছে।