নিউইয়র্কে সিলেটীদের মিলনমেলা

../news_img/54806 mrin k.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: শেষ গ্রীষ্মের চমৎকার আবহাওয়ায় পূর্ব পশ্চিমে ছড়িয়ে থাকা সিলেট অঞ্চলের লোকজনের মেলা বসেছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক নগরীতে। বাঙালি অধ্যুষিত কুইন্সের জ্যামাইকার ইয়র্ক কলেজ প্রাঙ্গণে শুরু হয়েছে দু দিনব্যাপী জালালাবাদ বিশ্ব সিলেট সম্মেলন। আগামীকাল রোববার শেষ হবে এ সম্মেলন।

আজ শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় মার্কিন কংগ্রেসের সদস্য গ্রেস মেংসহ অন্যান্য অতিথি ও আয়োজকেরা বেলুন উড়িয়ে সিলেট বিশ্ব সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। সবার জন্য উন্মুক্ত সিলেট বিশ্ব সম্মেলনের আয়োজন এবং ব্যবস্থাপনায় রয়েছে নিউইয়র্কের জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন।

 

জালালাবাদ সিলেট বিশ্ব সম্মেলনের আয়োজন নিয়ে সন্তুষ্টির কথা জানালেন সংগঠনের সভাপতি বদরুল হোসেন খান। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও জালালাবাদ সিলেট বিশ্ব সম্মেলন নিয়ে প্রবাসীদের উৎসাহ আমাদের অনুপ্রাণিত করছে।

 

বিশ্ব সিলেট সম্মেলন আহ্বান “আয় প্রাণের মাঝে যায়”। সংস্কৃতির অবগাহনে ঐতিহ্যের পুনর্জাগরণ নিয়ে কথা বলবেন সম্মেলনে আগত বিশিষ্ট লোকজন। সম্মেলনে আমেরিকাসহ বাংলাদেশ, ভারত, কানাডা, যুক্তরাজ্য, জাপান, জার্মানি, মধ্যপ্রাচ্য, মালয়েশিয়া ও অন্যান্য দেশ থেকে অনেকেই অংশ নিচ্ছেন। সম্মেলনে সংগীত, নৃত্য, মিলন মেলা, আত্মকথা, পরিচিতি, শুভেচ্ছা বিনিময়, প্রজন্মের অনুভূতি, শিকড়ের সন্ধানে, সিলেটী খাবার ও অন্যান্য স্টল আছে। ঐতিহ্যের ও সংস্কৃতির আয়োজনে ভরপুর থাকবে পুরো দু দিনের অনুষ্ঠান।

 

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের কোনো বিশেষ অঞ্চল নিয়ে এমন একটি বিশ্ব সম্মেলন রীতিমতো আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক জেড চৌধুরী জুয়েল প্রথম আলোকে বলেন, সব জায়গা থেকে ব্যাপক সহযোগিতা পাওয়া গেছে। এ বিশ্ব সম্মেলনের মাধ্যমে সিলেট অঞ্চলের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা নিয়ে সম্মিলিত আওয়াজ উঠবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন।

 

সিলেট বিশ্ব সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে উপস্থিত থাকছেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট চেয়ারম্যান হাফিজ আহমেদ মজুমদার, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, জাতীয় অধ্যাপক শায়লা খাতুন, ঢাকা জালালাবাদ সমিতির সভাপতি সি এম তোফায়েল সামি, অর্থনীতিবিদ ড. মোহাম্মদ খলীকুজ্জমান, মেজর জেনারেল (অব.) আজিজুর রহমান প্রমুখ।

 

এ ছাড়া ভারত থেকে এসেছেন দৈনিক যুগ শঙ্খ পত্রিকার সম্পাদক বিজয় কৃষ্ণ নাথ, গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলার প্রধান অমলেন্দু চক্রবর্তীসহ অনেকে। যুক্তরাজ্য কানাডা, জাপান ও জার্মানি থেকে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা এরই মধ্যে নিউইয়র্কে এসেছেন।