খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দুই দলের নেতারা মেয়র মনোনয়ন দৌড়ে নেমেছেন

../news_img/54828 mrin k.jpg

ওয়াহিদুজ্জামান, খুলনা থেকে :: স্থানীয় সরকার নির্বাচন কে সামনে রেখে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের( কেসিসি) মেয়র মনোনয়ন প্রত্যাশীদের জনসংযোগ  ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।আগের সময়ের মতো এবারও নগরবাসীর কৌতূহল কে কে হতে যাচ্ছেন প্রধান দুই দলের( আওয়ামীলীগ ও বিএনপি) মনোনয়ন প্রত্যাশী।

ওয়ান-ইলেভেন পরবর্তী খুলনা সিটি কর্পো'রেশন ( কেসিসি) নির্বাচনগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, বিএনপির সাবেক মেয়র তৈয়াবুর রহমানের মেয়র থাকাকালীন খুলনা উন্নয়নের গতি অপেক্ষা সাবেক মেয়র খুলনা মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব তালুকদার খালেকের সময়কার উন্নয়ন সামগ্রিক ভাবে বেশী।তাকে দলমত নির্বিশেষে অনেকেই খুলনার উন্নয়নের রূপকারও বলে থাকেন।

তবে আগত ২০১৮ সালের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কেসিসির মেয়র নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন বিষয়ে তালুকদার খালেকের সক্রিয়তার বিষয়ে অনেকেই কৌতূহল ব্যক্ত করেছেন।

জনমনে জিজ্ঞাসা -নির্বাচনে অংশগ্রহন বিষয়ে তার নিষ্ক্রিয়তার বিষয়ে বর্তমান সরকার দলীয় সংসদসদস্য ( বাগেরহাট-৩) জনাব তালুকদার খালেকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, নির্বাচনে মনোনায়ন বিষয়টি সম্পূর্ণ' দলীয় নীতিনির্ধারক ও সভানেত্রীর সিদ্ধান্ত। কেসিসি মেয়র নির্বাচনে যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে আমরা সকলেই তার পক্ষে সাংগঠনিক ভাবে কাজে করবো।সেই দৃষ্টিকোণ হতে দলীয় ভাবে যদি আমাকে মনোনীত করা হয়, তবে দলীয় সিদ্ধান্ত কে পালন করতে সচেষ্ট থাকবো।

তিনি আরও বলেন,বত'মানে আমার নির্বাচনী এলাকার( বাগেরহাট-রামপাল) যাবতীয় কাজ- কর্ম ও সাংগঠনিক কার্যক্রম ম  নিয়ে রয়েছি।তাছাড়া কেসিসি মেয়র নির্বাচনে দলে একাধিক তরুণ ও যোগ্য প্রার্থী' রয়েছেন বলেও মনে করি।

কেসিসি মেয়র নির্বাচনেমনোনায়ন দৌড়ে আওয়ালীগের মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত কয়েকজনের নাম শোনা যায়।তাদের একজন ছাত্র রাজনীতে হতে উঠে আসা খুলনা সদর-থানার সভাপতি এডভোকেট সাইফুল ইসলামের সক্রিয়তা দৃশ্যমান।এছাড়া  মেয়র মনোনয়ন দৌড়ে আরেক ডাকসাইট যুব নেতা মহানগর যুবলীগ আহবায়ক এডভোকেট  সরদার আনিসুর রহমান পপলুর নামও শোনা যায়।

আগত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বর্তমান খুলনা সিটি মেয়র ও খুলনা মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি পরবর্তী মেয়র প্রার্থিতায় মনেনায়ন প্রত্যাশী বলে জানা যায়।তবে বিএনপির খুলনা জেলা সভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট শফু্িকুল আলম মনা ও তৃণমূল ঘরনার অনুভূতি কে সাথে নিয়ে নির্বাচনে আগ্রহের কথাও সর্বজনবিদিত।

বর্তমান মেয়র মনিরুজ্জামান মনির সাথে কথা বলে জানা যায়,দলীয় হাইকমান্ডের সিদ্ধান্তে তিনি  অবিচল থাকতে চান।সেই সাথে তিনি আগামী মেয়র নির্বাচনে অংশগ্রহণে তার আগ্রহের কথাও ব্যাক্ত করেন।

বিএনপির খুলনা জেলা সভাপতি এডভোকেট শফিকুল আলম মনার নির্বাচনে তার ও বর্তমান মেয়র মনির পরবর্তী' নির্বাচনে অংশগ্রহনে সিদ্ধান্ত মানে একই দলের দুই প্রার্থী'র প্রস্তুতি।জনমনের ধারণা,বিএনপিতে এজাতীয় পরিস্থিতি আগত কেসিসি নির্বাচনে বড় ধরনের ধাক্কা খাওয়ার সম্ভাবনারই সংকেত বহন করে।

এ জাতীয় প্রসঙ্গে এডভোকেট মনা  জানান, আগেকার কেসিসির মেয়র নির্বাচনে মেয়র মনির দলীয় প্রধান নিবা'চনী এজেন্ট হিসাবে কাজ করেছি এবং সাংগঠনিক ভাবে সকলে  একতাবদ্ধ হয়ে ৬০ হাজারেরও বেশী ভোট ব্যবধানে মনি সাহেব কে জিতিয়ে এনেছি।

আগের বারই আমি মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলাম।এবার দলীয় হাইকমান্ড সাবি'ক প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে, আমাকে মেয়র নির্বাচনে মনোনীত প্রার্থী' হিসাবে বিবেচনা করবেন বলে  দৃঢ়ভাবে আশাবাদ ব্যাক্ত করছি।

বিএনপি নেতা মনা আরও বলেন,বিএনপির দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে আমাদের যাওয়ার সুযোগ নাই। বিগত ওয়ান-ইলেভেন পরবর্তী' স্থানীয় সরকার নির্বাচনেবিএনপি যেবার অংশ নেয়নি।সেবার মনিরুজ্জামান মনি দলীয় সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে কেসিসি নির্বাচনেঅংশগ্রহন করে তালুকদার খালেকের কাছে পরাজিত হন।

কেসিসি মেয়র নিবা'চনের দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে  আওয়ামীলীগের  আরেক ডাক সাইট নেতার নাম ও বত'মানে চাউর রয়েছে।তিনি খুলনা মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সরদার আনিসুর রহমান পপলু।এ বিষয়ে তিনি জানান,দলীয় মনোনায়নে আগ্রহের বিষয়টি দলের হাইকমান্ড হতে সবো'চ্চ পযা'য়ে জানিয়েছি। তাছাড়া দলের তৃণমূল পযা'য় হতে সব'ত্রই  মেয়র নির্বাচনে প্রাথি'তার বিষয়ে জোর সাড়া রয়েছে।

বিগত কেসিসি নির্বাচনসহ দেশের স্থানীয় সরকার নির্বাচনেআওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী'দের সাবি'ক সংখ্যক পরাজয়ের মূলকারণ হিসাবে হেফাজত ইসলাম ইস্যু এবং মৌলবাদী সংগঠন গুলোর একট্টাকে বিশেষ কারন হিসাবে অনেকেই মনে করেন।

এ জাতীয় বিষয়ে নৌকা প্রতীকে কেসিসি মেয়র প্রাথী'তায়  মনোনায়ন প্রত্যাশী এডভোকেট সাইফুল ইসলাম বলেন,
এখনকার প্রেক্ষাপট ভিন্ন।বত'মান আওয়ামীলীগ সরকারের উন্নয়ন ধারার যাবতীয় সুফল সংযোজিত প্রভাব-আসন্ন স্থানীয় সরকারেরন  আওতায় খুলনা সিটি কপো'রেশন নিবা'চনেও পরিলক্ষিত হবে বলে আমরা আশাবাদী।।

ছবি:ধারাবাহিকভাবে ১. বত'মান কেসিসি মেয়র মনিরুজ্জামান মনি ২.এডভোকেট শফিকুল আলম মনা৩. তালুকদাদ খালেক এমপি ৪.এডভোকেট সরদার আনিসুল ইসলাম পপলু ৫. এডভোকেট সাইফুল ইসলাম ( দুই দলের সম্ভাব্য মেয়র প্রাথী'গন)