‘ছেলেটা মইরা যাবে বুঝি নাই’

../news_img/55009 mrin k.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক ::  ময়মনসিংহের গৌরীপুরে কিশোর সাগর হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার দায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে মূলহোতা আক্কাস আলীর সহযোগী আবদুল কাইয়ুম।

তিন দিনের রিমান্ড শেষে শনিবার সন্ধ্যায় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এসএম রাজিবুল হাসানের আদালতে হাজির করা হলে তাকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক।

এ সময় আবদুল কাইয়ুম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আক্কাসের হুকুমে পিটাইছি, তবে সাগর ছেলেটা মইরা যাবো বুঝি নাই’।

ময়মনসিংহের নাটকঘর লেনের রেলওয়ে বস্তির কিশোর সাগরকে চোরের অপবাদ দিয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর গৌরীপুর উপজেলার চরশ্রীরামপুরে গাউছিয়া মৎস্য প্রজনন হ্যাচারিতে গাছে ও খুঁটিতে বেঁধে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় হ্যাচারির মালিক আক্কাস আলী, তার ভাই জুয়েল মিয়া, হাসু, সোহেল, সাত্তার এবং হ্যাচারির কর্মচারী আবদুল কাইয়ুমসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪-৫ জনকে আসামি করে ২৬ সেপ্টেম্বর গৌরীপুর থানায় মামলা করেন বাবা মো. শিপন মিয়া।

এ ঘটনার স্থির ও ভিডিও চিত্র দেখে হ্যাচারির মালিক আক্কাস আলী ও ময়মনসিংহ গোয়েন্দা আক্কাসের সহযোগী কাইয়ুম, ফজলুর রহমান ও রিয়াজ উদ্দিন রিজুসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১৪।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ময়মনসিংহ গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) এসআই পরিমলচন্দ্র দাস জানান, ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করে আক্কাস আলী ও কাইয়ুমকেও জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মো. আশিকুর রহমান জানান, যে মোটর পাম্প চুরির অভিযোগে কিশোর সাগরকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই পাম্পসহ অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে চার্জশিট দেয়ার প্রস্তুতিও চলছে।