নোয়াখালীতে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ, আহত অর্ধশত

../news_img/56209mmm.jpg


মৃদুভাষণ ডেস্ক::নোয়াখালীর মাইজদীতে বিএনপির মিছিলে পুলিশের সঙ্গে কর্মীদের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন।

পেট্রলবোমা হামলার মামলায় দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে করা মিছিলে বুধবার (১১ অক্টোবর) দুপুর ১২টার সংঘর্ষ শুরু হয়ে এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে চলে।

আহত ব্যক্তিদের মধ্যে দুজনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন চরজব্বর ডিগ্রি কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক সাফিয়া সুলতানা ও বিএনপিকর্মী ইরফাত। তাদের মধ্যে সাফিয়ার হাতে পুলিশের ছোড়া গুলি লাগে।

এ ঘটনায় সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ভিপি জসিম উদ্দিন ও জেলা যুবদলের সভাপতি মাহবুব আলমগীর আলোসহ ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশ মুহুর্মুহু ফাঁকা গুলি চালায়। অন্যদিকে বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে।

বিএনপির নেতাকর্মী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী জেলা বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানের রশিদ কলোনির বাড়ি থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিলের প্রস্তুতি নেন। এর আগে বিভিন্ন স্থান থেকে পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে খণ্ড খণ্ড মিছিল এসে শাহজাহানের বাড়িতে জড়ো হতে থাকে। পরে সেখান থেকে একত্র হয়ে মিছিল নিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রধান সড়কের দিকে যেতে চাইলে পুলিশের বাধার মুখে পড়েন। এতে উত্তেজিত নেতাকর্মীরা সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেনকে কিল-ঘুষি মারেন। এর পর পুলিশ গুলি চালালে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

ঘটনার পর পরই মাইজদী-সোনাপুর সড়কের দুদিকে শত শত গাড়ি আটকা পড়ে। ওই সময় বিএনপির বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা গাড়ি ভাঙচুর করেন।

সংঘর্ষের পর পরই পুলিশ সদস্যরা মো. শাহজাহানের বাসায় ঢুকে কয়েকটি ফাঁকা গুলি ছোড়েন। বর্তমানে বাড়িটি ঘেরাও করে রেখেছেন আওয়ামী লীগ ও পুলিশ সদস্যরা।

এ ব্যাপারে বিএনপির নেতাকর্মী ও পুলিশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কারও সঙ্গে কথা বলা যায়নি।