জামায়াতের হরতালে বিএনপি পূর্ণ সমর্থন

../news_img/56143mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক:: জামায়াতের বৃহস্পতিবারের (১২ অক্টোবর) হরতালে পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে বিএনপি। দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী নয়া পল্টনে বিএনপির কার্যালয়ে সকাল ১০টায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান। জামায়াতের আমির মকবুল আহমেদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমানসহ শীর্ষ নেতাদের মুক্তির দাবিতে জামায়তের ডাকে সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে।

রিজভী বলেন, ‘জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতাদের কোন কারণ ছাড়াই গ্রেফতার করছে সরকার। বর্ষিয়ান নেতাদের রিমাণ্ডে নিয়েছে। এটি ধারাবাহিক জুলুমের অংশ মাত্র। সরকার সবকিছুতে ভয়ভীতি দেখিয়ে জনমনে আতঙ্ক তৈরি করতেই এ পদক্ষেপ নিয়েছে।’

তিনি বলেন, জামায়াতের নেতাদের গ্রেফতারের প্রতিবাদ তারা করতে পারে। বিএনপি এতে পূর্ণ সমর্থন দিচ্ছে। তবে ২০ দলীয় জোট সমর্থন বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলেন জানান।

রিজভী বলেন, ভোটারবিহীন সরকার অবৈধ ক্ষমতার শেষপ্রান্তে এসে এখন দিশেহারা। চারদিকে বিদায়ের বাঁশী বাজতে শুরু করেছে। তাই এখন দ্বিগবিদিক জ্ঞানশুন্য হয়ে শেখ হাসিনার সরকার আরো বেশী উন্মত্ত ওঠেছে। মানুষের সকল অধিকার কেড়ে নিয়ে এখন সর্বোচ্চ আদালতকে কব্জায় নিতে সরকারী এজেন্সির লোকেরা যে সন্ত্রাসী তান্ডব চালিয়েছে, তা দেখে দেশবাসী শুধু হতবাক নয় রীতিমত শঙ্কিত। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে হত্যা করে ক্ষমতাসীনদের ক্ষমতাক্ষুধা সর্বগ্রাসিরুপ নিয়ে গোটা রাষ্ট্রব্যবস্থাকে গিলে খেতে উদ্যত হয়েছে।

রিজভী আরো বলেন, মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল বিচার বিভাগের ওপর ক্ষমতাসীনদের থাবা বিস্তার লাভ করেছে। সর্বোচ্চ আদালত আজ নজিরবিহীন সন্ত্রাসে ক্ষতবিক্ষত । সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতিও আজ অনিরাপদ। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের পর ক্ষমতাসীনরা প্রধান বিচারপতিকে অসুস্থ গালিগালাজ ও হুমকি প্রদর্শন করেছে। তারা প্রধান বিচারপতিকে আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে। তাদের মন্ত্রীরা প্রধান বিচারপতিকে তুই তোকারি করে বলেছে তাকে শুধু চাকুরি ছাড়লে হবেনা দেশও ছাড়তে হবে।

রিজভী বলেন, আওয়ামী সরকারের কাছে সর্বোচ্চ আদালতে মর্যাদার কোন মূল্য নেই। প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার আগেই তার বিরুদ্ধে অশোভন সমালোচনা ও মিডিয়া ট্রায়ালের এক সর্বনাশা খেলায় মেতেছে ভোটারবিহীন সরকার। মিডিয়ার দায়িত্ব সত্য তুলে ধরা। বস্তুনিষ্ঠু তথ্যের মাধ্যমে কারো বিরুদ্ধে দূর্নীতিও জনসন্মুখে তুলে ধরতে পারে, কিন্তু অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার আগেই কারো বিরুদ্ধে মিডিয়া ‘হাইপার প্রপাগান্ডা ’চালাতে পারে না। এখন প্রধান বিচারপতির ওপর যা করা হচ্ছে তা সরকার প্রধানের ব্যক্তিগত আক্রোশ। রায়ে কিছু পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে যাওয়াতে প্রধান বিচারপতির ওপর চলছে এখন রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের প্রবল ঝাপটা।

এদিকে হরতালে অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ও নাশকতা রোধে সারা দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। হরতালের সমর্থনে রাজধানীর বাড্ডাসহ একাধিকস্থানে ঝটিকা মিছিল করেছে জামায়াত ও ছাত্রশিবির।

উল্লেখ্য, গত সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উত্তরা পূর্ব থানাধীন ৬ নম্বর সেক্টর ১১ নম্বর সড়ক ৩ নম্বর বাসায় তৃতীয় তলার একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে জামায়াতের আমির মকবুল আহমাদসহ মোট ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। মঙ্গলবার বিকালে কদমতলী থানার পরিদর্শক সাজু মিয়া তাদের ঢাকা মহানগর আদালতে হাজির করলে আদালত তাদের ৮ জনকে ২ মামলায় ১০ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সারা দেশে হরতালের কর্মসূচি দিয়েছে দলটি।