৪ টাকার ডিমের জন্য খোয়া গেল হাজার টাকার ‘জুতো-মুঠোফোন’

../news_img/56271mmm.jpg


মৃদুভাষণ ডেস্ক::সুস্থ সবল থাকতে চাই, সব বয়সেই ডিম খাই স্লোগানে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৪০টিরও বেশি দেশে বিশ্ব ডিম দিবস পালিত হচ্ছে আজ শুক্রবার। এ উপলক্ষ্যে প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল (বিপিআইসিসি) চট্টগ্রামের নির্দিষ্ট তিনটি স্থানে ফ্রি ডিম খাওয়ানো এবং চার টাকা দামে ডিম বিক্রীর ঘোষনা দেয় গতকাল বৃহস্পতিবার।

গণমাধ্যমের সুবাধে চট্টগ্রামের মানুষের কানে পৌছে যায় খবরটিও। ব্যস, আজ শুক্রবার সকাল ১১ টায় ডিম বিক্রী শুরুর আগেই তিন স্থানে ঢল নামে বিক্রেতার। যাদের সব হাত একত্রে উঠে ডিমের দিকে। এক হাত-দু‘হাত করে ডিম দিতে গিয়েও গলদঘর্ম ডিম বিক্রেতারা। ডিম দখলের লড়াইয়ে খোঁয়া যায় কারও পায়ের জুতো, কারও মোবাইল। সবমিলিয়ে লাভের চেয়ে লোকসানই বেশি গুনছেন ক্রেতারা।

চট্টগ্রাম জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ রেয়াজুল হক এ প্রসঙ্গে বলেন, বিশ্ব ডিম দিবস উপলক্ষে শুক্রবার সকাল ১১টা থেকে চট্টগ্রাম মহানগরীর আন্দরকিল্লা শাহি জামে মসজিদ ও জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ এবং চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে ২৫ হাজার ডিম বিক্রির ঘোষণা দেয়া হয়। যা দুপুর ২টা পর্যন্ত বিক্রীর কথা।

কিন্তু সকাল ১১টা থেকে ১১টা ২০মিনিটেই সব ডিম বিক্রী শেষ বলে ঘোষনা দেয় ডিম বিক্রেতারা। তবে ক্রেতারা বলছেন, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর মোটেও ২৫ হাজার ডিম বিক্রী করেনি। এটি প্রচারণা চালাচ্ছেন মাত্র। প্রতারণা করেছেন ক্রেতাদের সাথেও। হাজার দশেক ডিম বিক্রী করে তারা বাকী ডিম আত্মসাৎ করার পরিকল্পণা করছেন বলে অভিযোগ ক্রেতাদের।

ক্রেতারা বলছেন, ফ্রি এক হাজার সেদ্ধ ডিম খাওয়ানোর কথা বললেও প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা কাউকে একটি ডিমও ফ্রি খাওয়ায়নি। চার টাকা ডিম বিক্রীর কথা বলায় ডিম কেনা নিয়ে ক্রেতাদের ঠেলাঠলি শুরু হয়। যেখানে ডিম খাওয়ার কোন পরিস্থিতিও ছিল না।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে ডিম কিনতে আসেন সাদিয়া জাহান পুতুল নামে এক গৃহবধু (৩৪)। তিনি বলেন, বাজারে প্রতিটি ডিম ৮ টাকা। ৪ টাকা দামে ডিম বিক্রীর খবর শুনে ডিম কিনতে আসি। ভাগ্যিস আগে থেকেই লাইনে দাড়িয়ে ৩০টি ডিম কিনতে পেরেছি। তা না হলে কিভাবে যে ডিম কিনতাম ভাবতে গা শিউরে উঠে।
তিনি বলেন, প্রেস ক্লাবের সামনে এত মানুষ ডিম কিনবে আসবে তা ভাবতে পারিনি। যাদের ধাক্কাধাক্কি ও ঠেলাঠেলিতে প্রাণ যাওয়ার অবস্থা। সেখানে দুই থেকে তিনশ মানুষ ডিম কনতে পারলেও ৬০০-৭০০ মানুষ ডিম কিনতে পারেনি বলে জানান তিনি।

ক্রেতারা বলেন, পিকআপে করে ডিম নিয়ে এসে প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের লোকজন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে ২০ মিনিট ডিম বিক্রী করেছেন। এরপর ঘোষনা দেন ডিম বিক্রী শেষ। পরে তারা পিকআপ নিয়ে চলে যান।

এ ব্যাপারে প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের ডিম বিক্রেতা কাউছার হোসেন জানান, প্রেস ক্লাবের সামনে আমরা সাড়ে ৬ হাজারের মতো ডিম বিক্রী করেছি। পরে আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদের সামনে চলে আসি। সেখানে ৯ হাজারের মতো ডিম বিক্রী করেছি। এরপর জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ মাঠে চলে আসি। দুপুর ২টা পর্যন্ত সেখানে বাকী ডিম বিক্রী করেছি। তিনি বলেন, সবখানে ডিম ক্রেতাদের ভীড় ছিল। ডিম না পেয়ে অনেক ক্রেতা গাড়ির পেছনেও দৌড়েছে। সবার কাছে বিক্রী করতে গেলে এক লাখেরও বেশি ডিম বিক্রী হতো বলে জানান তিনি।

দুপুর ২টায় জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ মাঠে দেখা যায় ডিম খাওয়া নিয়ে লেখা বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত ব্যানার ও ফেস্টুন টাঙানো পিকআপ। কিন্তু কোন ডিম নেই এতে। তখনো দাড়িয়েছিল অনেক ডিম ক্রেতা। যাদের অনেকের পা খালি। এরমধ্যে আবুল হাশেম নামে এক ক্রেতা জানান, ডিম ক্রেতাদের ভীড়ে তিনি পায়ের জুতো হারিয়েছেন। ফরিদ ও নাসের নামে দুজন জানান, তাদের মোবাইল হারিয়ে গেছে।

প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, বিশ্ব ডিম দিবস উপলক্ষে শুক্রবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে শোভাযাত্রা বের করা হয়। এছাড়া বিকেলে প্রেস ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী।