মাত্র ছয় ঘণ্টায় এত ইলিশ!

../news_img/56540mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক::২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে রবিবার রাত ১২টার পর থেকে সারারাত জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে মা-ইলিশ ধরা পড়েছে। যেহেতু অনেক দিন ধরে জাতীয় মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা সেহেতু ক্রেতাদেরও আগ্রহ ছিল গতকাল সোমবারের বাজারে ইলিশের বেচাকেনা নিয়ে। বিক্রেতারাও দীর্ঘ বিরতির পর চাহিদা তৈরি হবে জেনে সকাল থেকেই বসেন ঝুড়িভর্তি ইলিশ নিয়ে। তবে যত আগ্রহই থাক, বাজারে বিপুল পরিমাণ ইলিশ দেখে বিস্মিত হয়েছেন ক্রেতারা। বিস্মিত হয়েছেন সংশ্নিষ্ট পর্যবেক্ষকরাও। কারণ নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার মাত্র ছয় ঘণ্টার ব্যবধানেই গতকাল ভোরে ঢাকার বাজারে এত বেশি ইলিশ কোত্থেকে এলো, সে হিসাব মিলছে না কিছুতেই। একই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানের মোকামের ক্রেতাদের মধ্যেও।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে গিয়ে গতকাল দেখা গেছে, একদিকে হাঁকডাক, অন্যদিকে দরদাম- এই নিয়ে সরগরম ক্রেতা-বিক্রেতারা। খুচরা ও পাইকারি বাজারের মতো রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের ইলিশের আড়তগুলোও ছিল জমজমাট। কারওয়ান বাজার ও যাত্রাবাড়ীর আড়তে গতকাল সোমবার ভোর ৬টায় ট্রাকবোঝাই ইলিশ নামে। নৌপথে লঞ্চ থেকে ওয়াইজঘাট আড়তে এসেছে ইলিশ। ২২ দিন পরে গত রোববার রাত ১২টায় ইলিশের নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়েছে। এর মাত্র ৬ ঘণ্টা পরে কোথা থেকে এলো এত ইলিশ? এ প্রশ্ন ক্রেতাদের অনেকেই করেছেন। উত্তরে ব্যবসায়ীরা মুচকি হেসেছেন।

কারওয়ান বাজারের ইলিশ বিক্রেতা মাসুদ রানা ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য বলেন, পেটে ডিমভর্তি ইলিশের স্বাদ নিতে নিয়ে যান। ৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৫০০ টাকা। ক্রেতা ভুট্টো মিয়া জানতে চান, ডিম ছাড়া মাছ আছে? উত্তরে বিক্রেতা জানান, ডিম ছাড়া কোনো ইলিশ পুরো কারওয়ান বাজারে নেই। ডিমওয়ালা মাছ আনছেন কেন, জানতে চাইলে বিক্রেতা ক্রেতাকে পাল্টা প্রশ্ন করেন, আপনারা কিনতে আসছেন কেন? আপনারা কিনছেন বলেই জেলেরা নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও ধরার সুযোগ পেয়েছে। ওই সময়ে ধরা বলেই এখন সব মাছেই ডিম আছে।

আশ্বিনের পূর্ণিমা থেকে কার্তিকের অমাবস্যা পর্যন্ত মা ইলিশের প্রজনন নিশ্চিত করতে গত ১ অক্টোবর থেকে ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়ে ২২ অক্টোবর রাত ১২টায় শেষ হয়। মৎস্য অধিদপ্তর জানাচ্ছে, এবার অন্য বছরের চেয়ে কড়াকড়ি বেশি থাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ইলিশ ধরতে গিয়ে জেলেরা হাতেনাতে ধরা পড়েছে বেশি। জরিমানা ও জেল দুটোই বেশি হয়েছে তাদের। এর পরেও পুরোপুরি বন্ধ করা সম্ভব হয়নি অবৈধভাবে ইলিশ ধরা। নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে বিপুল পরিমাণ ইলিশ বাজারে আসায় অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন মা ইলিশ রক্ষার কার্যকারিতা নিয়ে।