সাতক্ষীরার নওয়াপাড়ায় মৎস্য খামারে বিষ প্রয়োগে ৫ লক্ষাধীক টাকার ক্ষয়ক্ষতি: থানায় অভিযোগ

../news_img/56598 mmm.jpg

মীর খায়রুল আলম, সাতক্ষীরা থেকে :: সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের নওয়াপাড়া গ্রামে মৎস্য খামারে টানা ৫ম বার বিষ প্রয়োগে ব্যাপক ক্ষতির সম্মূখিন হয়েছে এক মৎস্যচাষি। গত রবিবার গভীর রাতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে টানা পাঁচবার বিষ প্রয়োগের ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনাসূত্রে জানাগেছে, নওয়াপাড়া গ্রামের মৃত ছলেমান শেখের পুত্র আমিরুল শেখ নওয়াপাড়া সিদ্দিকিয়া আলিম মাদ্রাসার সংলগ্ন ১৮ বিঘা জমিতে একটি মৎস্য খামার করে দীর্ঘদিন ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। কিন্তু বিগত ২০১৩ থেকে এ পর্যন্ত তার খামারে ৫ বার বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে খামারটির মালিক আমিরুল শেখ জানান, তার স্ত্রীর ছোট ভাই সাইকুল ইসলাম উক্ত মৎস্য খামারটির রক্ষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছিল। কিন্তু ২০১৩ সালে পারিবারিক সমস্যার কারণে সাইকুলের ভাই সহিদুল ইসলাম খামারের মালিক আপন দুলাভাই এর সাথে বিভেদ সৃষ্টি করে। একই সাথে সাইকুলকে খামার থেকে নিয়ে চলে যায়। যাওয়ার সময় খামারের ক্ষতি করবে বলে বিভিন্ন হুমকি দিতে থাকে। তার কয়েকদিন পর উক্ত খামারে বিষ প্রয়োগের ঘটনা ঘটে। আর এতে প্রায় ১৪-১৮ মন গলদা চিংড়ি নষ্ট হয়ে যায়। ২য় বছর ২০১৪ সালে বিষ প্রয়োগে প্রায় ৩০মন বিভিন্ন প্রজাতির কার্পমিশ্র সাদা মাছ মারা যায়। পরবর্তীতে মাছ আহরণ শেষ সময়ের দিকে ২০১৫ সালে পুনরায় বিষ প্রয়োগ করলে ১৫-২০ মন মাছ মারা যায়। গত ২০১৬ সালে ভুল বশত খামারের পাশের পুকুরে বিষ দিলে ৫-৬মন সাদা মাছ মারা যায়। সেই ঘটনার পুনারাবৃত্তি ঘটেছে গত ২৯ অক্টোবর গভীর রাতে বিষ প্রয়োগ করলে রুই, কাতলা, গ্রাসকার্প, মিররকার্প, সঁরপুটি, মৃগেল, কালবাউসসহ বিভিন্ন প্রজাতির চালাই পোনা মারা যাওয়ায় প্রায় ৫ লক্ষার্ধীক টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। আর এতে ৫ম বারের মত বিষ প্রদান করায় তিনি অর্থনৈতিক ভাবে লোকসানের মুখে পড়েছেন। এদিকে উক্ত মৎস্য খামারে টানা ৫ বার বিষ প্রয়োগ করার ঘটনায় আমিরুল শেখের স্ত্রী আক্তারুননেছা বাদি হয়ে দেবহাটা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।