খুলনায় ওয়াসার পানি সরবরাহ প্রকল্পের রাস্তা পুনঃ সংস্কারের চলমান কাজে ধীর গতি

../news_img/56599 mmm.jpg

খুলনা প্রতিনিধি ::  খুলনায় ওয়াসার পানি সরবরাহ প্রকল্পের রাস্তা পুনঃ-সংস্কারের কারপেটিং এর কাজ পুনরায় শুরু হলেও চলমান কাজে ধীরগতি দেখা দিয়েছে। চলতি অক্টোবর মাসে রাস্তা দুটোর কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বৈরি আবহাওয়া জনিত কারণে বারবার বন্ধ রাখতে হওয়াতে, একে-তো কাজ শুরু হতে বিলম্ব হয়েছে। আর এখন রাস্তা সংস্কারের প্রয়োজনীয় ল্যাব পরীক্ষার সমুদয় রিপোর্ট প্রেরণ পর্যন্ত প্রধান রাস্তা দুটোর কাজ স্থগিত রাখা হয়েছে।শুধু পাইপ লাইন পুনঃ স্থাপনে নগরীর বাইলেন গুলোর কাপে'টিং এর কাজ চলছে।

সার্বিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে  ওয়াসার চলমান কাজে নগরীর খান-জাহান আলী রোড এবং সোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড রোডের কাজ এ মাসে সম্পন্ন করা সমভাব হচ্ছে না।

ওয়াসা সূত্র হতে জানা যায়, চলমান দুটি কাজ শেষ হতে আগামী নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় লেগে যেতে পারে।
ওয়াসা সূত্র আরো জানায়- কেসিসি কর্তৃপক্ষ খান-জাহান আলী  ও সোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড রোডের  অবশিষ্ট কাপে'টিং কাজের প্রয়োজনীয় ফিটনেস বিষয়ক পরীক্ষা  এলজিইডি ল্যাব হতে সম্পন্ন পূব'ক  কাজ বন্ধ রাখতে হয়েছে।তবে কাপেটিং এর কাজ উক্ত প্রধান দুটো রাস্তার বাই লেন গুলোতে অব্যাহত রয়েছে। ল্যাব পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে পেতে আরো সপ্তাহ খানেক লাগার সম্ভাবনা রয়েছে।যে জন্য চলমান কাজ সম্পন্ন হতে  কিছুটা সময় বেশী লাগার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

নগরীর প্রধান দুটো রাস্তার কাজ সম্পন্ন হলে নগরবাসী প্রায় ২০১৭ পুরো সময়কার ভোগান্তি হতে কিছুটা হলেও হাফ ছেড়ে বাঁচবে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ওয়াসার রাস্তা পুনঃ সংস্কারের কাজে নগরীর সরকারী সিটি কলেজ সংলগ্ন খান-জাহান আলী রোড হতে পিটিসই মোড় পয'ন্ত কারপেটিং এর কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
সোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড রোডের কারপেটিং এর কাজ খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সংলগ্ন অভিমুখ হতে শুরু করেছে ওয়াসা। অনেক পথচারীদেরই অভিমত সোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড রোডের কাজ আগামি নভেম্বর পুরো মাসই লেগে যেতে পারে।

এ সব বিষয়ে ওয়াসার পানি সরবরাহ প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক ইঞ্জিনিয়ার খান সেলিম আহমেদের সাথে যোগাযোগ করা হয়। তিনি জানান-চায়না জিউ কোম্পানির অর্থায়নে ওয়াসার পানি সরবরাহ প্রকল্পের রাস্তা পুনঃ সংস্কারের কারপেটিং এর কাজ শুরুর প্রস্তুতি।

চলতি বছরের কোরবানি ঈদের পর হতে নেওয়া হ্যেছিল। আবহাওয়া প্রতিকুলে না থাকার কারণে রাস্তা পুনঃ সংস্কারের কারপেটিং এর কাজ বারবার পিছাতে হয়েছে। যেহেতু এগুলো টেকনিকাল বেস কাজ, তাই আমাদের সদিচ্ছা থাকা স্বতঃতেও যথা সময়ে কাজ গুলো শেষ করা সমভাব হচ্ছে না।

রাস্তা পুনঃ-সংস্কারের কারপেটিং এর কাজ জনদুভো'গের কথা বিবেচনা করে দেশের অন্যান্য শহরগুলোতে রাত দিন কাজ করে দ্রুত সম্পন্নের প্রক্রিয়ার বিষয়টি নগরবাসির অনেকেরই অভিমত। দ্রুত কাজ সম্পন্নের এ জাতীয় পদক্ষেপ নেওয়ার কোন পরিকল্পনা ওয়াসার আছে কি না, এ প্রসঙ্গে প্রকল্প ব্যাবস্থাপক ইঞ্জিনিয়র খান সেলিম বলেন রাজধানী ঢাকাতে রাস্তার কাজে অথোরিটি জনদুরভগের কথা বিবেচনা করে রাতে কিংবা দিনরাত কাজ করে দ্রুত সম্পন্ন করে। এখানে অথরিটি এ জাতীয় সিদ্ধান্ত নিলে আমাদের অগ্রসর হতে সমস্যা নাই। কারন আমরা পর্যাপ্ত লোকবলের ব্যাবস্থা করে এ জাতীয় প্রকল্পের কাজ করে থাকি।

নগরের প্রধান দুটি রাস্তার কারপেটিং এর কাজ শেষ হলে সংশ্লিষ্ট অথরিটি জন গুরুত্তের কথা বিবেচনা করে পরবর্তী রাস্তা গুলোর কারপেটিং এর কাজে হাত দিবে বলে তিনি  আরও জানান।