হবিগঞ্জে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষককে পুঃণর্বাসনে বীজ সার ও নগদ অর্থ প্রদান

../news_img/Agri 1.jpg

মোঃ রহমত আলী, হবিগঞ্জ থেকে :: হবিগঞ্জ-লাখাই আসনের সংসদ সদস্য এডভোকোট মোঃ আবু জাহি বলেছেন, কৃষক হলো দেশের চালিকা শক্তি, কৃষক বাচল দেশ বাচবে। বাংলাদেশর মানুষ ভিক্ষুক জাতি নয়, যে ভিক্ষা নিয়ে বেচে থাকতে হবে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক ঘোরে দাড়াতে বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বিনা মূল্যে বীজ, সার ও জমি আবাদ করতে ব্যয় খরচ হিসেবে প্রত্যেক কৃষককে নগদ ১ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে।  বিএনপি সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার আমলে কৃষক টাকা দিয়ে কোথাও সার কিনতে পায়নি এমনকি মারদোরও খেয়েছিলেন এ দেশের কৃষক। কৃষকদের মাঝে বীজ সার বিতরনী অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি উপরোক্ত কথাগুলি বলেন। বীজ ও সার বিতরণ উপলক্ষে  সোমবার সকালে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ কে এম আজহারুল ইসলাম এর সভপতিত্বে সভায় বক্তৃতা করেণ সদও উপলো পরিষদেও চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হক, ভাাইস চেয়ারম্যান মোঃ মাহবুবুল হক আউয়াল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস আরা, জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল রশিদ তালুকদার, পইল ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মঈনুল হক আরিফ ও গোপায়া ইউপি চেয়ারমান মোঃ আক্তার হোসেন প্রমূখ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায়,  চলতি রবি মওসুমে হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্থ ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষীকে সরকারীভাবে পুঃণর্বাসন করতে বিনা মূল্যে বীজ, সার ও নগদ টাকা দেয়া হয়েছে।  এর মধ্যে বোরোতে ২২শ ৬০ জন ও  অনান্য ফসল ভুট্টা ৩০ জন, মুগ ডাল ৫০ জন ও সরিষাতে ২শ জন কৃষক উক্ত সহায়তা পেয়েছেন। কৃষি বিভাগ আরও জানাযায়, গত বছরে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের মধ্যে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের পুঃণর্বাসনের আওতায় এনে তাদেরকে বিনা মূল্যে বীজ, সার ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে।  সূত্র জানায়, বোরোতে ৫ কেজি ধানের বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি টি এস পি ও ১০ কেজি এম ও পি সার এবং নগদ ১০০০ টাকা প্রত্যেক চাষীকে দেয়া হচ্ছে। তাছাড়া সরিষা, ভুট্টা, ও মুগ ডালের বীজও কৃষকদের মাঝে বিনা মূল্যে দেয়া হয়েছে।