ওসমানীনগরে এক শিক্ষা প্রতিষ্টানে ১০বার চুরি

../news_img/osmani nogor mri.jpg

ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি :: সিলেটের ওসমানীনগরের কাগজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১০ বার চুরির ঘটনা ঘটেছে। গত দুই মাসে ৩বার চুরি সংগঠিত হয়েছে বিদ্যালয়টিতে। সর্বশেষ শনিবার রাতে বিদ্যালয়ের কাগজপত্র রাখার ভাঙ্গা আলমিরাসহ মূল্যবান অনেক জিনিসপত্র  নিয়ে গেছে চোরেরা। এর আগে চলতি মাসের শুরুতে চোরেরা বিদ্যালয়ের মূল ফটকের ষ্টীলের গেইটসহ দরজা জানালা খোলে নিয়ে যায় । এর দুই মাস পূর্বে বিদ্যালয়ে চেয়ার, টেবিল, ফ্যানসহ অন্যান্য আসবাবপত্র চুরির ঘটনা ঘটে। এছাড়া বিগত সময়ে আরও ৬ বার বিদ্যালয়টিতে চুরি সংগঠিত হয়। গত শুক্রবার রাতে সিলমানপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চুরি সংগঠিত হয়। বিদ্যালয় থেকে চোরচক্র লোহার গেইটসহ ৫০ জোড়া ডেস্ক-বেঞ্চ ও মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়।

ওসমানীনগরে চুরি  নিত্যনৈমেত্তিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। গত ৩ মাসে উপজেলায় প্রায় অর্ধশতাধিক চুরির ঘটনা ঘটেছে।  বাসা-বাড়ি, ব্যবসা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমনকি সরকারি অফিস ও কর্মকর্তাদের বাসাও চোরদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। একের পর এক চুরির ঘটনায় আতংকিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী। বিভিন্ন সময়ে চুরির ঘটনা ঘটলেও পুলিশ চুরি যাওয়া কোন মালামালও উদ্ধার করতে পারেনি। প্রতিনিয়ত চুরির ঘটনা ঘটলেও এসব ঘটনায় ভুক্তভোগীরা মামলা করতেও নারাজ। চুরির ঘটনা রোধে পুলিশ প্রশাসনও হিমসিম খাচ্ছে। চলতি মাসের উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায়ও চুরির ঘটনায় ক্ষোভ এবং উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কমিটির সদস্যরা। চুরিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে সভার সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনিছুর রহমান থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন।  পুলিশ প্রশাসন চুরিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা না নিলে আইন শৃংখলার চরম অবনতি ঘটনার আশংকা ব্যক্ত করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

কাগজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লক্ষী রায় বলেন, আমি যোগদান করার পর গত ফেব্রুয়ারী থেকে এপর্যন্ত তিনবারসহ মোট ১০ বিদ্যালয়ে চুরি সংগঠিত হয়েছে। ভবনের ইটছাড়া বিদ্যালয়ে অবশিষ্ট কিছু নাই।
 
সিলমানপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উম্মে আছমা বলেন, আমার বিদ্যালয়ে সীমানা প্রাচীরের ষ্টীলের গেইট, ৫০ জোড়া ষ্টীলের ডেক্স-বেঞ্চসহ অনেক মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়।
 
ওসমানীনগর থানার ওসি মোহাম্মদ সহিদ উল্যা চোর দমনে পুলিশ প্রশাসন তৎপর রয়েছে উল্লেখ করে বলেন, এলাকায় চুরিরোধে পুলিশের পাশাপাশি জনসাধারণকেও এগিয়ে আসতে হবে।