সৌদি আরবে ২৪ হাজার অবৈধ অভিবাসী গ্রেফতার

../news_img/57143 mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক ::  সৌদি আরবে গত তিন দিনে ২৪ হাজার অভিবাসীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বৈধভাবে বসবাসের নিয়ম ভাঙা ও শ্রম আইনের ব্যত্যয় ঘটানোর অভিযোগে তাদের ওপর এ ধরপাকড় চলে বলে জানিয়েছে সৌদি গেজেট।

তবে তাদের মধ্যে কোন দেশের কতসংখ্যক অভিবাসী আটক হয়েছেন, সে সম্পর্কে কিছু জানায়নি রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমটি।

সৌদি গেজেট জানাচ্ছে, তিন দিন ধরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। অভিযান এখনও চলছে।

কর্তৃপক্ষ বলছে, গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ১৫ হাজার ৭০২ জন সৌদি আরবে বসবাসের আইন লঙ্ঘন করেছেন। বাকিদের সীমান্ত নিরাপত্তা আইন ও শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের ৪২ শতাংশই মক্কা নগরী থেকে আটক করা হয়। এ ছাড়া রাজধানী রিয়াদ, আসির প্রদেশ, জাযান এবং পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশগুলো থেকে আটক হয়েছে। এর মধ্যে এই অভিবাসীদের সাহায্য করার অভিযোগে ২৫ সৌদি নাগরিককেও আটক করা হয়েছে।

বিবিসি বাংলাকে অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সৌদি আরবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ। তবে তিনি দাবি করেন, এটি একটি নিয়মিত অভিযান।

তিনি জানান, এই অভিযানে কতজন বাংলাদেশি আটক হয়েছে, সে বিষয়ে এখনও পুরো তথ্য পায়নি দূতাবাস।

তিনি বলেন, প্রতি মাসে সৌদি সরকার দূতাবাসকে একটি রিপোর্ট দেয়। যাতে কোন অপরাধে আটক বাংলাদেশিদের তালিকা প্রদান করে। কিন্তু নতুন এই অভিযানে ঠিক কতজন বাংলাদেশি আছে সে রিপোর্ট এখনও দেয়া হয়নি।

রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ বলেন, যখনই বাংলাদেশিদের সংখ্যাটি তারা জানবেন, তখন সেখানকার কর্মকর্তারা থানায় গিয়ে প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন।

এ বছরের মার্চে সৌদি আরবে অবৈধভাবে বসবাস করা বিদেশিদের বৈধ কাগজপত্র সংগ্রহ করতে ৯০ দিনের সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছিল।

সেই সময়ে অবৈধ বিদেশি নাগরিক ও শ্রমিকদের ৯০ দিনের ‘সাধারণ ক্ষমা’ ঘোষণা করা হয়েছিল। যাতে বলা হয়েছিল, দেশটিতে অনুমতি ছাড়া বসবাস, ইকামা বা সরকারি অনুমতি না নিয়ে কাজ করা এবং সৌদি আরবে অবৈধ অনুপ্রবেশের মতো অপরাধের ক্ষেত্রে সাধারণ ক্ষমা প্রযোজ্য হবে।

এই সময়ের মধ্যে অবৈধ ব্যক্তিরা কোনো শাস্তি ছাড়াই নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার সুযোগ পাবেন।