ঘৃণার জবাবে ক্ষমা ও সহানুভূতির আহ্বান পোপের

../news_img/57437mmm.jpg


মৃদুভাষণ ডেস্ক::মিয়ানমারের ইয়াংগুনের এক ঐতিহাসিক গণজমায়েতে দেশটির ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের উদ্দেশে দেয়া সারমেনে ঘৃণার জবাবে ক্ষমা ও সহানুভূতির আহ্বান জানিয়েছেন পোপ ফ্রান্সিস।

ওই গণজমায়েতে দেয়া সারমেনে (ধর্মীয় বক্তৃতা) বলেন, ‌‘আমি জানি সহিংসতার কারণে অনেকের মনের মধ্যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। কিছু ক্ষত বাইরে থেকে দেখার সুযোগ আছে আর কিছু দেখার সুযোগ নেই। আমরা ভাবি যে, রাগ আর প্রতিশোধের মাধ্যমে এ ক্ষত মুছে দেয়া যাবে। কিন্তু প্রতিশোধ খ্রিস্টের রাস্তা নয়।’

প্রায় দেড় লাখ প্রার্থনাকারী এ জমায়েতে অংশ নেন। ইয়াঙ্গুনে কিয়াককাসান স্পোর্টস গ্রাউন্ডে অস্থায়ী বেদিতে যাওয়ার সময় প্রার্থনার জন্য জড়ো হওয়া ব্যক্তিরা ভ্যাটিকান ও মিয়ানমারের পতাকা নেড়ে পোপকে স্বাগত জানান।

সমাবেতদের উদ্দেশে পোপ বলেন, ‘আপনাদের অনেকেই দূর-দূরান্ত থেকে এসেছেন। এমনকি পায়ে হেঁটে পর্যন্ত এসেছেন। আমিও আপনাদের মতো একজন। আমি আপনাদের কাছ থেকে শিখতে এসেছি। একইসঙ্গে আপনাদের আশা ও সান্ত্বনার বাণী শোনাতে এসেছি।

গণজমায়েতে আসা একজন প্রার্থনাকারী বলেন, ‘আমি এক সপ্তাহ আগে বাড়ি ছেড়েছি। এ জমায়েতে যোগ দিতে আমাকে এক হাজার ৬শ’ কিলোমিটার রাস্তা পাড়ি দিতে হয়েছে।
প্রার্থনা সভায় ইয়াঙ্গুনের শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তাসহ সু চি প্রশাসনের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গও উপস্থিত ছিলেন।’

তিন দিনের সফরে এখন মিয়ানমার রয়েছেন পোপ ফ্রান্সিস। প্রথমবারের মতো কোনো পোপ বৌদ্ধ প্রধান দেশ মিয়ানমার সফর করছেন।