বামদের হরতালে সমর্থন জানিয়ে চুপচাপ বসে বিএনপি

../news_img/57361 mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে বামদলগুলোর হরতালে সমর্থন দিলেও মাঠে নেই বিএনপি। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বেলা দুইটা পর্যন্ত কর্মসূচি পালন করছে সিপিবি-বাসদ ও গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা।

হরতালের পক্ষে বাম দলগুলোর নেতা-কর্মীরা নগরীর পুরানা পল্টন, প্রেসক্লাব, শাহবাগ এলাকায় মিছিল করলেও বিএনপির নেতা-কর্মীদের কোনো ধরনের তৎপরতা ছিল না সকাল থেকে।

হরতালের কারণ দেখিয়ে আজ দুর্নীতির দুই মামলায় আদালতে যাননি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এ বিষয়ে তার আইনজীবীরা একটি আবেদনও করেছিলেন। তবে বকশিবাজারের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক আখতারুজ্জামান খালেদা জিয়ার জামিন বাতিল করে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

এ বিষয়ে বিকাল তিনটায় বিএনপি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে বলে জানিয়েছেন দলটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু।

বাম দলগুলোর কর্মসূচির আগের দিন বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের এক মানববন্ধনে বাম মোর্চার হরতালে ‘পূর্ণ সমর্থনের’ ঘোষণা দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

গত ২৩ নভেম্বর বিদ্যুতের দাম গড়ে ৩৫ পয়সা করে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত জানায় এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন। বিএনপি এই সিদ্ধান্তকে গণবিরোধী আখ্যা দিলেও এর প্রতিবাদে কোনো কর্মসূচি দেয়নি।হরতালের সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পরিস্থিতি অন্যান্য দিনের মতোই। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ কেন্দ্রীয় নেতারা সকালের দিকেই কার্যালয়ে গেছেন। নেতাকর্মীদের কার্যালয়ে আসা যাওয়াও স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছেন দপ্তরের একজন কর্মকর্তা। এছাড়া অন্যান্য দিনের মত নয়াপল্টনে পুলিশ সদস্যরা রয়েছেন।

কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রিজভী আহমেদ ছাড়াও বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন, তাইফুল ইসলাম টিপুসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা আছেন।

হরতালে সমর্থন দিলেও কোনো কার্যক্রম আছে কি না- জানতে চাইলে তাইফুল ইসলাম টিপু ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘হরতালে আমরা সমর্থন দিয়েছি। এর বাইরে সবকিছু স্বাভাবিক আছে।’