সোম বা মঙ্গলবার আসতে পারে বাঁধনের লাশ

../news_img/57376 mmm.gif

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: একটি মেয়ের চোখ বাঁধা, হাতে পাল্লা। আইন অন্ধ কিন্তু বিচার স্বচ্ছ (জাস্টিস ইজ ব্লাইন্ড বাট ফেয়ার)। আমেরিকার এ প্রতিষ্ঠিত আইনি সত্যকে বিশ্বাস করে ক্যানসাস রাজ্যের উচিটা শহর নয়, পুরো যুক্তরাষ্ট্রের বাঙালি সমাজ বাঁধনের এ নৃশংস হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যানসাস রাজ্যের উচিটা শহরে গত শনিবার রাতে বাংলাদেশি তরুণ এম হাসান রহমান বাঁধনকে কে বা কারা গুলি করে হত্যা করেছে।

আগামীকাল শুক্রবার উচিটা ইসলামিক সোসাইটি মসজিদে জুমার নামাজের পর বাঁধনের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সোম বা মঙ্গলবার বাংলাদেশে লাশ পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে জানিয়েছেন বাঙালি কমিউনিটি নেতারা।

এদিকে উচিটা পুলিশ গত সোমবার প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছে, রোববার বেলা ১১টায় উচিটা শহরের সেন্ট্রাল রক রোডের পাশে পেজন্ট লাইভ ওক স্ট্রিট অ্যাপার্টমেন্টের সামনে একটি গাড়ি থেকে ২৬ বছরের বাঁধনের লাশ উদ্ধার করা হয়। গাড়িটি তাঁরই। পুলিশ জানায়, তিনি পিৎজা ডেলিভারির কাজ করতেন। শনিবার রাতে পিৎজা ডেলিভারি দিয়ে ঠিক সময়ে ফিরে না আসায় পিৎজা হাট কর্তৃপক্ষ পুলিশকে বিষয়টি জানায়। ধারণা করা হচ্ছে, দুর্বৃত্তরা তাঁকে গুলি করে লাশ গাড়ির ট্যাংকে রেখে চলে যায়।

পুলিশের ধারণা, নিহত বাঁধন পরিস্থিতির (রং টাইম, রং প্লেস) শিকার হয়েছেন। পুলিশ জানায়, যে জায়গায় বাঁধন পিৎজা ডেলিভারি দিতে গিয়েছিলেন, সেটি লাশ ফেলে আসা জায়গা থেকে অনেক দূরে।

বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে বাঁধনের সহপাঠী-আত্মীয়স্বজন ও শুভানুধ্যায়ীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও সুষ্ঠু বিচার দাবি করে স্ট্যাটাস দিতে থাকেন।

ক্যালিফোর্নিয়া থেকে বাংলাদেশি-আমেরিকান ডেমোক্রেটিক কোয়ালিশনের কাউসার জামাল এ হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্তসহ বিচার দাবি করেন। ওয়াশিংটন ডিসি ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটির সহযোগী প্রফেসর আদনান মোরশেদ গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

এদিকে সোমবার রাতে ক্যানসাসের উচিটা শহরে বাঙালি খাবার রেস্টুরেন্ট দেশিকারিতে শোকসভার আয়োজন করা হয়।

ছোটবেলার বন্ধু নঈমের সঙ্গে বাঁধন যুক্তরাষ্ট্রে একসঙ্গে থাকতেন। নঈম জানান, বাঁধন রাজধানী ঢাকার উত্তরা মডেল হাই স্কুল থেকে এসএসসি ও ঢাকা বিজ্ঞান কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে। এরপর ২০১১ সালে বৃত্তি নিয়ে উচিটা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে অ্যারো স্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হয়। এডিশনাল বিষয়গুলো বাটলার কমিউনিটি কলেজ থেকে (অ্যাসোসিয়েট) শেষ করেন। ডিসেম্বরে ক্যানসাস ইউনিভার্সিটিতে ভর্তির (গ্র্যাজুয়েশন) চূড়ান্ত প্রক্রিয়া শেষ করেছিল। গত মাসে সে ইউএস বিমানবাহিনীতে পরীক্ষা শেষ করেছিলেন। এতে সর্বোচ্চ নম্বরও পেয়েছিলেন। এতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাঁর পছন্দসই যেকোনো শাখা বাছাই করার জন্য তাঁকে সময় দেয়। তাঁর ইচ্ছা ছিল, এ পথ ধরে মহাকাশ সংস্থা (নাসা ) পর্যন্ত যাওয়া।

নাঈম আরও জানান, বাঁধন ছয় মাস ধরে পিৎজা ডেলিভারির কাজ করেছিলেন। প্রতিদিন সাড়ে ১২টার মধ্যে ঘরে ফিরে আসতেন। কিন্তু গত শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত বাঁধন ঘরে না ফেরাতে রাত তিনটা পর্যন্ত বিভিন্ন হাসপাতালে খোঁজ করি। পরে পুলিশ জানায়, তুমি যাকে খুঁজছ, তাঁর লাশ আমরা উদ্ধার করেছি।