আয়কর রিটার্ন বেড়েছে ৩৬ শতাংশ

../news_img/57391 mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: চলতি অর্থবছরে বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে (৩০ নভেম্বর পর্যন্ত) সারাদেশে ব্যক্তি শ্রেণির আয়কর রিটার্ন দাখিল হয়েছে ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬১৬ জন করদাতার। যা গতবছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৬ দশমিক ০১ শতাংশ বেশি।

অন্যদিকে আয়কর আহরণ হয়েছে ৪ হাজার ২৮১ কোটি ৩২ লাখ টাকা। যা গতবছরের একই সময়ের তুলনায় ২৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ বেশি।

রিটার্ন দাখিলের জন্য সময় বৃদ্ধির আবেদন করেছেন ২ লাখ ৭৯ হাজার ৬২৬ জন করদাতা। যা গত বছরের চেয়ে ৮৪ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি।

শুক্রবার এনবিআরের জেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা সৈয়দ এ মু'মেন এ তথ্য  রাইজিংবিডিকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান,  বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত করদাতারা বিভিন্ন কর অঞ্চলে আয়কর রিটার্ন দাখিল ও কর প্রদান করেন।  করদাতাদের এমন সাড়া পাওয়ায় এনবিআর গর্বিত। মাননীয় চেয়ারম্যান এজন্য করদাতাদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

এনবিআর সূত্র জানায়, ২৪-৩০ নভেম্বর সারাদেশে সকল কর অঞ্চলে আয়কর সপ্তাহ পালিত হয়। যেখানে মেলার পরিবেশে মেলার মতই সকল কর সেবা প্রদান করা হয়। প্রতিবছরের মতো এবারও আয়কর সপ্তাহে করদাতারা বিপুল উৎসাহ, উদ্দীপনা ও কর্মচাঞ্চল্য নিয়ে স্ব-প্রণোদিত ও স্বতঃস্ফুর্তভাবে মেলার পরিবেশে সকল কর অঞ্চলে আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছেন।

করদাতারা ২০১৭-১৮ করবর্ষের আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছেন পাশাপাশি নতুন করদাতারা ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশন ও রি-রেজিস্ট্রেশন করেছেন। ৩০ নভেম্বর ২০১৭ ছিল ব্যক্তি শ্রেণির করদাতাদের আয়কর রিটার্ন দাখিলের শেষ দিন। ৩০ নভেম্বর গভীর রাত পর্যন্ত সারাদেশে দাখিলকৃত আয়কর রিটার্নের সংখ্যা দাড়াঁয় ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬১৬ যা বিগত করবর্ষের একই সময়ের তুলনায় ৩৬ দশমিক ০১ শতাংশ বেশি। অর্থাৎ ৪ লাখ ১২ হাজার ১১৯টি রিটার্ন বেড়েছে।

আয়কর আহরণ হয়েছে ৪ হাজার ২৮১ কোটি ৩২ লাখ টাকা। যা গতবছরের একই সময়ের তুলনায় ২৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ বেশি। অর্থাৎ ৯৪৬ কোটি ১১ লাখ টাকা বেশি।

সূত্র আরো জানায়, ২৪ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত আয়কর সপ্তাহে কর অঞ্চলে ৬ লাখ ৬০ হাজার ৩৬২ জন করদাতা রিটার্ন দাখিল, ৮৭৫ কোটি ৪২ লাখ টাকার আয়কর প্রদান ও ৭ লাখ ১০ হাজার ৩০৬ জন সেবা নিয়েছেন।

অন্যদিকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ৩২ লাখ ৩৪ হাজার ৬৫৪ জন করদাতা ই-টিআইএন নিবন্ধন করেছেন।

গত ৩ বছরের ই-টিআইএন পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০১৫ সালে ৩০ জুন পর্যন্ত নিয়েছেন ১৬ লাখ ৫৫ হাজার ৮০৮ জন। যা ২০১৪ সালের তুলনায় ৪ লাখ ৫ হাজার ৫৪০ জন বেশি।

২০১৬ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত নিয়েছেন ১৯ লাখ ৭৯ হাজার ১৮৯ জন। যা ২০১৫ সালের তুলনায় ৩ লাখ ২৩ হাজার ৩৭৯ জন বেশি।

২০১৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত নিয়েছেন ২৯ লাখ ২২ হাজার ৯১২ জন। যা ২০১৬ সালের তুলনায় ৯ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৩ জন বেশি।

আর ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত নিয়েছেন ৩২ লাখ ৩৪ হাজার ৬৫৪ জন। যা ৩০ জুনের তুলনায় ৩ লাখ ১০ হাজার ৭১৫ জন বেশি।