ব্যবসায়ীদের মহাসড়ক অবরোধ ওসমানীনগরে সরকার দলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

../news_img/57480 mmm.jpg

ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি :: সিলেটের ওসমানীনগরে চঞ্চল গ্রুপ ও আবদাল গ্রুপের  নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘেের্ষর ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার তাজপুর বাজারে ঘটনাটি ঘটে। সংঘর্ষে কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও উভয়পক্ষের মধ্যে  ইটপাটকেল বিনিময়ের সময় চারদিকে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। বন্ধ হয়ে যায় বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।  আতংকিত হয়ে পড়ে  মঙ্গলচন্ডী নিশিকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষারত শিক্ষার্থীরাও। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়।  নেতাকর্মীরা দ্বিতীয় দফায় সংঘর্ষে জড়াতে  শক্তি সঞ্চয় করলেও  ব্যবসায়ীদের প্রতিবাদী ভূমিকা এবং পুলিশি অবস্থানের  কারণে শক্তি প্রয়োগ করতে পারেনি।

উপজেলা স্বেচ্চাসেবক লীগের আহবায়ক চঞ্চল পাল মোটর সাইকেলযোগে গোয়ালাবাজার যাওয়ার পথে আবদাল গ্রুপের একাধিক মোটরসাইকেল আরোহী  বেঙ্গাত্মক শব্দ উচ্চারণকে  কেন্দ্র করে  সংঘর্ষের সূত্রপাত হয় বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে রাজনৈতিক গ্রুপ গুলোর বাজার কেন্দ্রিক  সংঘর্ষের ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে দুপুরে দোকানপাঠ বন্ধ করে মহাসড়কে নেমে পড়ে ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি কিছু দিন পর পর রাজনৈতিক গ্রুপ গুলোর হানাহানির কারণে ব্যাপক লোকসানের শিকার হয়ে আসছেন।  এমন কার্যকলাপ বন্ধের দাবি জানিয়ে  মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন ব্যবসায়ীরা। তবে তাৎক্ষণিক পুলিশের অনুরোধে  অবরোধ তুলে নেন তারা। অবরোধ স্থাপনকালে সেনাবাহিনীর দু’টি গাড়িও আটকা পড়তে দেখা যায়।
 
তাজপুর মঙ্গলচন্ডী নিশি কান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবক কমিটির সদস্য আজাদ মিয়া বলেন, সংঘর্ষের কারণে পরীক্ষারত শিক্ষার্থীরা আতংকিত হয়ে পড়ে। অনেক শিক্ষার্থীর পরীক্ষা শেষ হলেও বিদ্যালয়ে আটকে থাকতে হয়।

স্থানীয় ইউনিয়ন  পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরান রব্বানী বলেন, বাজারের এই ধরণের মারামারির কারণে ব্যবসায়ীরা সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

ওসমানীনগর থানার ওসি মোহাম্মদ সহিদ উল্যা বলেন, দুই গ্রুপের সংঘর্ষের খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়। সব ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ঘটনাস্থলে পুলিশ অবস্থান করছে বলেও জানান তিনি।