চীনে ট্যাংকার-জাহাজ সংঘর্ষ, ২ বাংলাদেশি নাবিকসহ নিখোঁজ ৩২

../news_img/58122 mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: চীনের সমুদ্র উপকূলে ইরানি তেলবাহী ট্যাংকার ও জাহাজের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৩২ নাবিক নিখোঁজ রয়েছেন। তাদের মধ্যে দুই বাংলাদেশি ও ৩০ জন ইরানি। এ ছাড়া সংঘর্ষের ঘটনায় ২১ চীনা নাবিককে উদ্ধার করা হয়েছে।
 

স্থানীয় সময় শনিবার রাত ৮টায় সাংহাই থেকে ১৬০ নটিক্যাল মাইল পূর্বে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে বলে রোববার চীনের পরিবহন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। খবর সিনহুয়া ও রয়টার্সের।

চীনা মন্ত্রণালয়ের বরাতে সিনহুয়া জানায়, সংঘর্ষের শিকার তেলবাহী ট্যাংকারটি নাম ‘দি সানচি ট্যাংকার’ (সি-কেএস ৭৩০৯৪৯২৪৯৪)। এর সঙ্গে সংঘর্ষ হয় হংকংয়ে নিবন্ধিত বাল্ক ফ্রেইটার ‘সিএফ ক্রিস্টাল’ (সি-বিও ৭৩০৯ ৭৩০৯৫২২৯৫৫)-এর।

চীনের পরিবহন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নিখোঁজ ৩২ নাবিকের সবাই দি সানচি ট্যাংকারের সদস্য। অন্যদিকে উদ্ধার হওয়া ২১ নাবিকের সবাই সিএফ ক্রিস্টালের সদস্য।

জানা গেছে, সংঘর্ষের ঘটনার পর চীন ঘটনাস্থলে তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চালানোর জন্য আটটি জাহাজ পাঠিয়েছে।

এ ছাড়া চীনা মেরিটাইম তল্লাশি ও উদ্ধার কেন্দ্রের সঙ্গে সমন্বয় করে তল্লাশির কাজে সহায়তা করতে দক্ষিণ কোরিয়া একটি কোস্টগার্ড জাহাজ ও ফিক্স-উইং এয়ারক্রাফট পাঠিয়েছে।

রয়টার্স জানিয়েছ, তেলবাহী ট্যাংকারটি ইরান থেকে এক লাখ ৩৬ হাজার টন তেল নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়া যাচ্ছিল। আন্তর্জাতিক বাজারে ১০ লাখ ব্যারেল সমপরিমাণের এসব তেলের দাম প্রায় ছয় কোটি ডলার।

স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় সানচি ট্যাংকারটি ভাসমান অবস্থায় ছিল এবং এটিতে আগুন জ্বলছিল বলে জানিয়েছে চীনা পরিবহন মন্ত্রণালয়।

চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত ছবিতে দেখা গেছে, ট্যাংকারটিতে আগুন জ্বলছে এবং বড় ধরনের কালো ধোয়া উড়ছে।

রয়টার্সের তথ্যানুযায়ী, ন্যাশনাল ইরানিয়ান ট্যাংকার কোম্পানি-এনআইটিসির ব্যবস্থাপনায় ২০০৮ সালে দি সানচি ট্যাংকারটি তৈরি করা হয়। এর নিবন্ধিত মালিখ ব্রাইট শিপিং লিমিটেড।

আজ রোববার ট্যাংকারটি ইরানের খার্গ দ্বীপ থেকে তেল নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় দায়সেনে ভেড়ার কথা ছিল। কিন্তু এর আগেই সংঘর্ষের শিকার হয়।

সংঘর্ষের শিকার চীনা জাহার সিএফ ক্রিস্টাল ৬৪ হাজার টন খাদ্যশস্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র থেকে চীনের দক্ষিণাঞ্চলীয় গুয়ানডং প্রদেশের দিকে যাচ্ছিল বলে জানিয়েছে দেশটির পরিবহন মন্ত্রণালয়।

রয়টার্স জানিয়েছে, ২০১১ সালে নির্মিত সিএফ ক্রিস্টালের আগামী ১০ জানুয়ারি নির্দিষ্ট বন্দরে নোঙর করার কথা ছিল।

এ নিয়ে গত কয়েক বছরের মধ্যে দ্বিতীয়বার সংঘর্ষের শিকার হল ইরানি কোম্পানি এনআইটিসি পরিচালিত কোনো ট্যাংকার। এর আগে ২০১৬ সালের আগস্টে সিঙ্গাপুরে একটি ইরানি সুপার ট্যাংকার একটি কনটেইনারবাহী জাহাজকে ধাক্কা দিয়েছিল। অবশ্য এতে কোনো প্রাণহানি বা সমুদ্র দূষণের ঘটনা ঘটেনি।