নির্বাচন না হলে আগের রুটিনেই এসএসসি পরীক্ষা

../news_img/58503mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক::রাজধানীর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপ-নির্বাচনের নির্ধারিত দিন ছিল ২৬ ফেব্রুয়ারি। এজন্য নির্বাচন আয়োজন করতে দুই দিনের এসএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে দেয়ার যে পরিকল্পনা নিয়েছিল শিক্ষাবোর্ড। তবে ভোট না হলে তা কার্যকর করা হবে না বলে জানিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।

হাই কোর্ট বুধবার (১৭ জানুয়ারি) ওই নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করে দেয়ার পর ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার এ কথা জানান।

তিনি বলেন, এসএসসি পরীক্ষার সময় সিটি করপোরেশনের ভোট না হলে পরীক্ষা পেছানো হবে না। নির্ধারিত সূচি অনুযায়ীই পরীক্ষা হবে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপ-নির্বাচন এবং দুই সিটির ৩৬ ওয়ার্ডে ভোটের আয়োজন নিয়ে গত ২৬ ডিসেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বোর্ড কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে নির্বাচন কমিশন। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়, এই নির্বাচন আয়োজনের সুবিধার্থে ২৪ ও ২৫ ফেব্রুয়ারির এসএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়া হবে।

সে অনুযায়ী ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন ঠিক করে নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করলেও দুই রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে হাই কোর্ট বুধবার ওই নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করে দেয়।

তপন কুমার সরকার বলেন, নির্বাচন কমিশনের অনুরোধে তারা দুই দিনের পরীক্ষা পেছনোর বিষয়ে সম্মত্তি দিয়েছিলেন। কিন্তু নির্বাচনই যেহেতু আদালতে স্থগিত হয়ে গেছে, সেহেতু সূচি পরিবর্তনের কোনো প্রয়োজন আপাতত হচ্ছে না।

অর্থাৎ আদালত থেকে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত না এলে আগের সূচি অনুযায়ীই ২৪ ফেব্রুয়ারি ভূগোল ও পরিবেশ এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি সংগীত বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষা হচ্ছে। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এসএসসির তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলবে। আর ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ৪ মার্চ পর্যন্ত হবে ব্যবহারিক পরীক্ষা।

শিক্ষাবোর্ডের এমন কথা পরীক্ষার্থীদের মধ্যে কতটুকু মানসিক চাপ ফেলবে তা ভেবে দেখা দরকার বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।