বসল পদ্মা সেতুর দ্বিতীয় স্প্যান

../news_img/58337 mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: প্রথম স্প্যান বসানোর প্রায় চার মাস পর পদ্মা সেতুর ৩৮ ও ৩৯ নম্বর পিলারের ওপর দ্বিতীয় স্প্যান ৭বি (সুপার স্ট্রাকচার) বসানো হয়েছে। এর মাধ্যমে সেতুর ৩০০ মিটার দৃশ্যমান হল।
 

রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবা প্রান্তে তিন হাজার ১৫০ টন ধারণ ক্ষমতার এ স্প্যান বসানো হয়।

পদ্মা সেতুর জুনিয়ার সার্ভেয়ার ফারুক হোসেন জানান, দ্বিতীয় স্প্যান ৭বি ৩৮ ও ৩৯ নম্বর পিলারের মাঝামাঝি আনা হয়। এর পর ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও তিন হাজার ৬০০ টন ওজনের স্প্যানটি দুই পিলারের লিফটিং ফ্রেম ও বেয়ারিংয়ের ওপর বাসানো হয়।

এর আগে শনিবার পরীক্ষামূলক স্প্যান বসানোর আনুষঙ্গিক প্রাথমিক কাজ শুরু হয়।

সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, একটি শক্তিশালী ক্রেনের সাহায্যে স্প্যানটি ২০ জানুয়ারি বিকালে মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে জাজিরা প্রান্তে আনা হয়। ১৫০ মিটারের স্প্যানটির ওজন ৩ হাজার ৬০০ টন। ৩ হাজার ৭০০ টন ওজনের একটি ভাসমান ক্রেনের সাহায্যে স্প্যানটি আনা হয়।

স্প্যানটি জাজিরা প্রান্তে পিলারের কাছে পৌঁছতে তিন দিন লাগার কথা। কিন্তু নদীতে প্রচণ্ড কুয়াশা, পদ্মা সেতুর কাজে ভারী যন্ত্রাংশ ব্যবহার ও নদীতে নাব্য সংকট থাকায় স্প্যানবাহী ভাসমান ক্রেনটি জাজিরা প্রান্তে পৌঁছতে আট দিন লাগে।

৩৩ নম্বর খুঁটির কাছ থেকে স্প্যান বহনকারী ভাসমান ক্রেনটি শনিবার সকালে ৩৮-৩৯ নম্বর পিলারের দিকে রওনা হয়।

এর আগে গত বছর ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটির মধ্যে প্রথম স্প্যানটি বসানো হয়েছে। এর চার মাস পর দ্বিতীয় স্প্যানটি বসানো হয়। এটিসহ মোট ১২টি স্প্যান রয়েছে মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে। দুটিতে রঙের কাজ চলছে। ওই দুটি স্প্যান আগামী ফেব্রুয়ারি ও মার্চে বসানো হবে।

জাজিরা প্রান্তের নাওডোবায় (তীরের কাছের অংশ) ৪০ নম্বর পিলারটি স্প্যান বসানোর জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। আর ৪১ ও ৪২ নম্বর পিলারটির ঢালাইয়ের কাজ চলছে। ওই দুটি পিলার প্রস্তুত হতে আগামী জুন পর্যন্ত সময় লাগবে বলে জানান সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা।