এমনই পীড়ন স্বজনদের চিনতে পারছেন না!

../news_img/58882 mmm.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: র‌্যাগিংয়ের শিকার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। ঘটনার পর থেকে তিনি আত্মীয়স্বজন কাউকেই চিনতে পারছেন না। তাঁকে একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞের অধীনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

 

র‌্যাগিংয়ের শিকার ওই শিক্ষার্থীর নাম মিজানুর রহমান। তাঁর বাড়ি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার কায়করিয়াকান্দা গ্রামে। তিনি ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র। এ ঘটনায় গতকাল রোববার একই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের চার শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রক্টরের কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা সোহেল রানা।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিজানুরের সহপাঠীরা বলেন, গত বুধবার দুপুরে ওই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থী (৪৬তম ব্যাচ) প্রথম বর্ষের (৪৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার জন্য কথা বলেন। এ সময় দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা মিজানুর রহমানসহ শহীদ সালাম বরকত হলে আসন বরাদ্দ পাওয়া শিক্ষার্থীদের ওই হল ছেড়ে আ ফ ম কামালউদ্দিন হলে উঠতে ভয়ভীতি দেখান ও চাপ দেন। পরদিন দুপুরে মিজানুরকে আবারও ভয় দেখান তাঁরা। এরপর ওই রাত থেকে অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করেন মিজানুর।

 

শিক্ষার্থীরা জানান, কামালউদ্দিন হলে গেলে ‘বড় ভাই’দের নির্দেশ মেনে চলতে হবে এবং যখন যা বলে, শুনতে হবে।

 

হলের জ্যেষ্ঠ শিক্ষার্থীরা মিজানুরকে দেখতে গেলে তিনি ‘তুই আমার জীবন শেষ করেছিস, তোরা আমাকে মেরে ফেলবি’—এসব বলতে থাকেন। খবর পেয়ে শুক্রবার রাতে তাঁর বাবা ও চাচা ক্যাম্পাসে আসেন। কিন্তু মিজানুর তাঁদের কাউকে চিনতে পারেননি।

 

মিজানুরের বাবা আজিজুল হক বলেন, ‘আমার ছেলের অবস্থা ভালো নয়। সে এখনো অস্বাভাবিক আচরণ করছে। দিনের অধিকাংশ সময় সে ঘুমাচ্ছে।’

 

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এমদাদুল ইসলাম বলেন, গতকাল বিভাগে বৈঠক করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রক্টর তপন কুমার সাহা বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা কাজ করছি। খুব দ্রুত উপাচার্যের কাছে প্রতিবেদন জমা দেব।’

 

 

 

সংবাদ সম্মেলন

 

গতকাল বিকেলে সমাজবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষক লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত শিক্ষক সমিতির সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফরিদ আহমেদ বলেন, ‘র‌্যাগিং বন্ধে আমরা আজ (গতকাল) থেকে নিয়মিত বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো পরিদর্শন করব।’ এর আগে বেলা সোয়া তিনটায় নতুন কলাভবনে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাগিং বন্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে কার্যকর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ঐক্যমঞ্চ। উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, সাঈদ ফেরদৌস, নাসিম আখতার হোসাইন প্রমুখ।