`বল টেম্পারিং অনেক ধরেছি কিছুই হয়নি'

../news_img/59940 mrini.jpg

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: বল টেম্পারিং নিয়ে বিতর্ক চলছেই। এই বিতর্কের শেষ কোথায় তা হলফ করে বলা মুশকিল। বল বিকৃতির চলমান বিতর্ককে নতুনভাবে আলোচনায় নিয়ে এলেন ইংল্যান্ডের আম্পায়ার জন হোল্ডার।

ক্রিকেট থেকে অবসরে যাওয়ার পর কোচিংকে পেশা হিসেবে বেছে নেন ইংলান্ডের এই সাবেক ক্রিকেটার। ১৯৮৮ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত কোচিং ক্যারিয়ারে বল টেম্পারিংয়ের অনেক ঘটনা তিনি হাতে নাতে ধরেছেন। কিন্তু তাদের শাস্তি দেয়ার ক্ষমতা ছিল না।

সম্প্রতি কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং বিতর্কে জড়িয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। আর এ ঘটনার পেছনের মদদদাতা হিসেবে নিষিদ্ধ হন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ, ডেবিড ওয়ার্নার ও ব্যানক্রফট।

এই ঘটনা প্রকাশে আসার পর সাবেক ইংলিশ আম্পায়ার জন হোল্ডার- বলছেন, তার ১৩ বছরের ক্রিকেট ক্যারিয়ারে মাঠে হরহামেশা এই প্রতারণা প্রত্যক্ষ করেছেন। বহুবার হাতেনাতে ধরেছেনও। কিন্তু শাস্তির বিধান না থাকায় কিছু করতে পারেননি।

হোল্ডার বলেন, ১৯৯১ তে লন্ডনে ওভালের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে এক টেস্ট ম্যাচে ইংলিশ ক্রিকেটারদের বল টেম্পারিং নিয়ে তিনি লিখিতভাবে অভিযোগ করেছিলেন কিন্তু কিছু হয়নি।

‘ওভারের শেষ বল গেল উইকেটকিপার অ্যালেক স্টুয়ার্টের কাছে। আমি বলটা তার কাছ থেকে নিয়ে নিলাম। দেখলাম বুড়ো আঙুলের নখ দিয়ে বলটাকে আঁচড়ানো হয়েছে। প্রচণ্ড রেগে গিয়েছিলাম আমি। বুঝতে পারছিলাম পুরোপুরি প্রতারণা করা হচ্ছে। বলে আঁচড়ের জন্য তখন কোনো শাস্তির বিধান ছিল না। ‘আমরা শুধু বলটা বদলে দিতে পারতাম।’

মি হোল্ডার শুধু বল বদলেই অবশ্য ক্ষান্ত হননি, তার ম্যাচ রিপোর্টে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ইংল্যান্ড দলের বল টেম্পারিং নিয়ে লিখেছিলেন কিন্তু ঘটনা সেখানেই চাপা পড়ে যায়।