মেরে ফেলার যড়যন্ত্র নিয়ে নিজের ফেসবুকে যা লিখলেন আসিফ আকবর

../news_img/60891mmm.gif

মৃদুভাষণ ডেস্ক: আন্ডারওয়ার্ল্ড আর শো’বিজ পাশাপাশি চলে। মাফিয়া আর টেরোরিষ্ট’রা তাদের অভিশপ্ত জীবনকে ভুলে থাকতে মিডিয়ার মানুষদের সাথে মিশে একটু হালকা হতে চায়। নিরীহ শো-বিজের মানুষেরা বুঝে ওঠার আগেই চমৎকার ব্যবহার দিয়ে আন্ডারওয়ার্ল্ড ঢুকে পড়ে কালচারাল জোনে। এই অভিজ্ঞতা টপ মোস্ট আর্টিস্টদের প্রায় সবারই আছে। কেউ বাহাদূরী দেখায় আর কেউ এই পরিস্থিতিটা সতর্কভাবে এনজয় করে। আমি এর ব্যতিক্রম না, দেশ সেরাদের সাথে মেলামেশা হয়েছে, কখনো এডভান্টেজ নেইনি, বরং তাদের শান্ত করে সুপথে আনার চেষ্টা করেছি। নিজের ফেসবুকে এসব লিখেছেন কন্ঠশিল্পী আসিফ আকবর। তাকে মেরে ফেলার যড়যন্ত্র নিয়ে নিজের ফেসবুকে লিখলেন আসিফ আকবর। তিনি আরও লিখেছেন...

‘কেউ বাহাদুরী দেখায় আর কেউ এই পরিস্থিতিটা সতর্কভাবে এনজয় করে। আমি এর ব্যতিক্রম না, দেশ সেরাদের সাথে মেলামেশা হয়েছে, কখনো এডভান্টেজ নেইনি, বরং তাদের শান্ত করে সুপথে আনার চেষ্টা করেছি, পরিবারের কথা মনে করিয়ে দিয়েছি, যদিও বেশীর ভাগই দুনিয়ার মায়া ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়েছে। মিথ্যা কথা আর মিথ্যুক আমার সবচেয়ে বড় শত্রু। সাহসীদের আমার স্যালুট, বোকা কৃপণ লোভী দাম্ভিকরা হয় স্বশিক্ষিত অশিক্ষিত এবং বিপজ্জনক, একসময় এরাই ছিলো আমার আশেপাশে।’

‘বিশ বছরের ক্যারিয়ারে বহুবার মৃত্যুর হুমকি পেয়েছি, মৃত্যু কখনো কখনো সামনে এসে পিছিয়ে গেছে। দেশে বিদেশে হত্যার হুমকি মাথায় নিয়ে ঘুরেছি, ভয় গ্রাস করেনি মুহূর্তের জন্যও। আল্লাহ্’র রহমতে গাণপয়েন্ট থেকে ফিরেছি বেশ কয়েকবার। আমার বেইলী রোডের ষ্টুডিওতে ঘটেছে অস্ত্র প্রদর্শন আর গোলাগুলির ঘটনা। মদ্যপ অবস্থায় একজন গায়ক ও একজন গীতিকার ওয়েল উইপনড মাস্তান নিয়ে এসেছে ষ্টুডিওতে, সবাই কোমরের অস্ত্র খুলে বসেছে আমাকে ঘিরে, আমি গেষ্টদের বের করে তাদের ফেস করেছি।’

‘বুকের উপর রিভলবার ধরে ট্রিগারে আঙ্গুল রেখে টলছে, সেফটি ক্ল্যাচ অন করা ,গুলি বের হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনায়ও শান্ত থেকেছি, এখনো বেঁচে আছি। এখনও মৃত্যুর হুমকি আসে, ফোনে হুমকি আসলে গালিগালাজ করতে থাকি, কারো মাধ্যমে আসলে সেই অভাগা গুন্ডার অবস্থান জানতে চাই। আমার কথাবার্তা আমার মতোই হবে, এটাই স্বাভাবিক। আমি বেজী না বলেই নপুংসকদের ভীড়ে আত্মবিশ্বাস নিয়ে কথা বলি, আমার সত্য বচনকে তারাই ঔদ্ধত্য মনে করে।’

‘মাস্তান পরিচয় পেলে প্রথমেই মাথা গরম হয়ে যায়। শত হুমকি সত্ত্বেও একা চলেছি, এখনো চলছি। যারা মেরে ফেলার চিন্তা করে তারা হুমকি দেয়না, তারা অবৈধ অস্ত্রের সাহায্য নেয় নিজের ভয় কাটানোর জন্য, অস্ত্রের লাইসেন্সও করিনি মায়ের নিষেধাজ্ঞায়। আমি আসিফ আকবর- জীবনে দুটো প্রেতাত্মাকে প্রশ্রয় দেইনি –ভয় আর টেনশন। মনে প্রাণে মানি আমার বস বিদ্রোহী কবির অমর উচ্চারণ –চির উন্নত মম শির।’