1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন

করোনার ঝুঁকির মধ্যেই খুলল বৃহত্তম কাপড়ের বাজার

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বর্তমান চলমান সংকটের কারণে সারা দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়েছে। প্রাচ্যের ম্যানচেস্টার খ্যাত নরসিংদীতে ঐতিহ্যবাহী ও দেশের বৃহত্তম পাইকারি কাপড় বাজার শেখেরচর বাবুরহাটেও এর প্রভাব পড়েছে।

এমন অবস্থায় ব্যবসায়ীদের অবস্থা চিন্তা করে শর্তসাপেক্ষে সীমিত আকারে বাবুরহাট বাজারের ব্যবসায়ীদের দোকান খোলার জন্য গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে জেলা প্রশাসন। শর্ত ভঙ্গ করলে বন্ধ করে দেয়া হবে বাবুরহাট।

নরসিংদী জেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে শিলমান্দী ইউনিয়নে অবস্থিত দেশের সর্ববৃহৎ নিত্যপ্রয়োজনীয় কাপড়ের বাজার বাবুরহাট। ঈদের মৌসুমে প্রতিদিন এ হাটে প্রায় হাজার কোটি টাকার লেনদেন হয়ে থাকে। করোনাভাইরাসের কারণে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক ৯ এপ্রিল থেকে জেলা লকডাউন করার পর বাবুরহাট বাজার বন্ধ হয়ে যায়।

জীবিকা নির্বাহ করছে শত শত কাপড় ব্যবসায়ী ও হাজার হাজার শ্রমিক। বাবুরহাটে গামছা, লুঙ্গী, কাপড়, থ্রি-পিছ, প্যান্ট পিছ, শার্ট পিছসহ বিভিন্ন পসরার নিত্যপ্রয়োজনীয় কাপড়ের চাহিদা রয়েছে। মূলত বাবুরহাট পাইকারি কাপড়ের বাজার। এ বাজার থেকে সারা দেশে কাপড় রফতানি করে দেশের বাইরেও রফতানি করা হয়।

গত ২৫ এপ্রিল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত নরসিংদী জেলা কমিটির সভাপতি সৈয়দা ফারহানা কাউনাইনের সভাপতিত্বে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে নরসিংদী চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আলী হোসেন শিশির, শেখেরচর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি ও শিলমান্দী ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল বাকিরসহ বাবুরহাটের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবজনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অর্থনীতির চাকা চালু রাখতে জেলার অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রাণকেন্দ্র বাবুরহাট বাজারের কার্যক্রম স্বাস্থ্যবিধি মেনে শর্তসাপেক্ষে সীমিত পরিসরে চালু করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

শর্তগুলো হল- বাবুরহাট বাজারে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত শুধু স্টক ডেলিভারি সিস্টেম চালু থাকবে। বাজারে কোনো দোকান খোলা থাকবে না। শুধু ১টি শাটার খোলা রেখে পণ্য ডেলিভারি করতে হবে। বাবুরহাট বাজারের সব আড়ত ও দোকানে পাইকারি ও খুচরা সব ধরনের পণ্যেও অর্ডার শুধু অনলাইনে বা মোবাইল ফোনে গ্রহণ করতে হবে এবং সব লেনদেন অনলাইন বা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হবে।

ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য কোনো জনসমাগম করা যাবে না। প্রতিটি দোকানে কমর্রত কর্মচারীদের সর্বোচ্চ তিনজন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে একসঙ্গে আড়ত ও দোকানে অবস্থান করতে হবে। বাজারে প্রবেশ ও বহির্গমনের জন্য উত্তর ও দক্ষিণ দিকে অর্থাৎ দুটি গেট খোলা থাকবে। বাজারের প্রবেশ পথে থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে প্রবেশকারীদের শরীর তাপমাত্রা পরীক্ষা, বাজারের বিভিন্ন স্থানে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা এবং বাজারে অবস্থানরত সবাইকে আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরিধান করতে হবে।

নরসিংদীর স্থানীয় গাড়িচালক ও গাড়িসমূহ দিয়ে আবশ্যিকভাবে পণ্য পরিবহনের ব্যবস্থা করতে হবে। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ওপর যানবাহন রেখে মালামাল লোড-আনলোড করা যাবে না। শুধু পার্শ্ববর্তী সরকারি মাঠ (ধূমকেতু মাঠ) ব্যবহার করতে হবে।

ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বাজারের সব রাস্তা ও যানবাহন জীবাণুমুক্তকরণ এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সুরক্ষাবৃত্ত অঙ্কন করতে হবে। বাজারে প্রবেশকারীদের জীবাণুমুক্ত করার লক্ষ্যে প্রবেশ গেটে ডিজইনফেকশন টানেল স্থাপন করতে হবে।

নরসিংদী চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আলী হোসেন শিশির বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে ২৪ মার্চ থেকে শেখেরচর বাবুরহাট বন্ধ রয়েছে। যার ফলে ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ব্যবসায়ীরা সারা বছর রোজার মাসে ব্যবসার জন্য অপেক্ষা করেন। আর পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছে রোজার শুরু থেকেই বাবুরহাটের কাপড়ের চাহিদা থাকে। তাই আমরা প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে বাবুরহাট বাজার চালু করা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, নরসিংদীর অর্থনীতির লাইফলাইন বাবুরহাট বাজার। এই অর্থনীতির লাইফলাইনকে সচল রাখার জন্য বাস্তবতার নিরিখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও শর্তসাপেক্ষে সীমিতভাবে বাবুরহাট চালু রাখার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। তবে ৩ জনের বেশি ক্রেতা-বিক্রেতা কোনো দোকানে প্রবেশ করতে পারবেন না। হাটকে মনিটরিং করার জন্য একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ নেতৃত্বে সেনাবাহিনী ও পুলিশের স্ট্রাইকিং ফোর্স সার্বক্ষণিক নিয়োজিত থাকবে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, যারা পাইকারি ব্যবসা করছেন তাদের অনলাইন প্রক্রিয়া চালু করা হয়েছে। কিন্তু ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের জন্য কোনো অনলাইন প্রক্রিয়া এখনও পর্যন্ত চালু হয়নি। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীরা। লাভবান হচ্ছেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com