1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন

ডিজিটাল স্ক্রিন থেকে চোখ সুরক্ষিত রাখবেন যেভাবে

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: কথা না বললেও শুধু চোখের দৃষ্টিই বলে দিতে পারে মানুষের রাগ, দুঃখ, ভয়, অনুভূতি, ভালোবাসা, অভিমান, সত্যি, মিথ্যার মতো মনের নানা কথা৷ আর সেজন্য মনের মত সুস্থ চোখ থাকা চাই। চোখের জন্যই আমাদের চারপাশের পৃ্থিবী এত সুন্দর। আবার প্রত্যেক মানুষের শরীরে সব থেকে স্পর্শকাতর অঙ্গ চোখ। তাই চোখের যত্ন নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অফিসের কাজ করার সময় টানা কম্পিউটার বা ল্যাপটপের দিকে তাকিয়ে থাকা। আবার বাসায় বা অবসরে টিভিতে খবর দেখা বা মোবাইল চেক করা। করোনার আগে এসব চললেও তার সঙ্গে কিছু নিয়মও ছিল।

আগে কাজের অবসরে বই পড়া কি গান শোনার চল ছিল, এখন অবসর সময়ের সব নজরটুকুই টিভিতে। ফলে দিনের শেষে চোখ জ্বালা, চোখে অস্বস্তি, চোখ লাল হওয়া, ভারী ভাব, ঝাপসা দেখা, কপাল-ঘাড়-পিঠ-মাথা ব্যথা, সবই বসেছে জাঁকিয়ে।

চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞের মতে, ‘সারাক্ষণ ডিজিটাল স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকলে, আমরা চোখ পলক ফেলতে ভুলে যাই বলেই বিপদ হয়।এমনিতে যত বার শ্বাস চলে, তত বার পলক পড়ার কথা। অর্থাৎ মিনিটে ১৮ বার। যাতে কিছু তৈলাক্ত ও জলীয় পদার্থ মণির উপর ছড়িয়ে পড়ে চোখকে সুস্থ রাখতে পারে।

এক মনে স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকলে ১৮ বারের বদলে ৫-৯ বার পলক পড়ে। চোখ শুকাতে থাকে। দেখা দেয় উপসর্গ, যাকে বলে ড্রাই আই সিনড্রোম। এ ছাড়া অনেক ক্ষণ ধরে কাজ করলে মণিকে ক্রমাগত স্ক্রিনের চারপাশে ঘোরাতে হয় বলে পেশিতে চাপ পড়ে। ক্লান্ত হয় চোখ। যত বেশি সময় ধরে কাজ চলে, তত বাড়ে বিপদ। যাদের চোখে খুব বেশি মাইনাস পাওয়ার আছে, তাদের বেশি সমস্যা। চশমা না পরে কাজ করলেও সমস্যা বেশি হয়।

চক্ষু বিশেষজ্ঞদের মতে, ফোন বা কম্পিউটারের পর্দা থেকে বের হওয়া নীল রশ্মির প্রভাবে চোখের ক্ষতি হয়। তা ছাড়া, কিছু আপাতদৃষ্টিতে নিরীহ কাজেও চোখের ক্ষতি হয়। তবে চিন্তার কিছু নেই। রোজ মেনে চলতে হবে কিছু সহজ টোটকা। জীবনযাত্রায় আনতে হবে ছোট কিছু পরিবর্তন। তা হলেই ঠিক থাকবে আপনার দৃষ্টিশক্তি।

চোখের চাই বিশ্রাম ও নিয়ম

কম্পিউটারে ৩০-৪৫ মিনিট কাজ করার পর ৫-১০ মিনিটের বিরতি নিন। এক গ্লাস জল খান।সে সময় চোখের কোনও কাজ করবেন না।

সঠিক উচ্চতার চেয়ার-টেবিলে বসে মনিটর ২২ ইঞ্চি দূরে রেখে কাজ করুন।ঘরের আলোর উজ্জ্বলতা যেন মনিটর থেকে একটু কম থাকে।

বই পড়া বা দূরে দেখার চশমা পরে কাজ করলে সমস্যা হতে বাধ্য।কম্পিউটারে কাজ করার জন্য আলাদা চশমা লাগে।সেটা পরে কাজ করুন।

এক-আধ ঘণ্টা বাদে বাদে টেবিলে দু-কনুই রেখে হাতের তালুতে চোখ দুটো চেপে ধরে রাখুন ২-৩ মিনিট।

২০ মিনিট অন্তর মনিটর থেকে চোখ সরিয়ে ২০ ফুট দূরের কিছুর দিকে ২০ সেকেন্ড তাকিয়ে থাকুন।চোখের পলক ফেলুন ২০ বার।

মাঝে মাঝে চোখে-মুখে ঠান্ডা জলের ঝাপটা দিন। চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকুন।

দূরে দেখার চশমা থাকলে ওই চশমা পরে টিভি দেখুন। আলো জ্বালিয়ে রাখবেন। নির্দিষ্ট দূরত্বে বসে টিভি দেখাই সবচেয়ে ভাল। অন্তত মশারির মধ্যে থেকে দেখবেন না।

ঘুমের সমস্যা থাকলে শোওয়ার দু-ঘণ্টা আগে টিভি, ল্যাপটপ, মোবাইল বন্ধ করে দিন। মোবাইল বা ল্যাপটপের স্ক্রিন থেকে যে নীল আলো বেরয়, তাতে ঘুমের ব্যাঘাত হয় অনেক সময়।

নিয়ম মেনে সমস্যা না কমলে চোখের ড্রপ দিতে হতে পারে।ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে নিন।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com