1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
সব মোবাইলের জন্য একই চার্জার বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব এসএসসি পরীক্ষা নভেম্বরে, এইচএসসি ডিসেম্বরে: শিক্ষামন্ত্রী সিলেটে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্কলার্সহোমের ছাত্র নিহত মহারাষ্ট্রে নারকীয় ঘটনা, ২৯ জন মিলে তরুণীকে গণধর্ষণ দাঁড়িয়ে থাকা পিকআপে ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ৩ আফগানিস্তানে ১৫০ সংবাদপত্র বন্ধ ওসির কক্ষে হত্যা মামলার আসামিকে লাইভে জিজ্ঞাসাবাদ, তোলপাড় নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সাইডলাইনে সেন্টার ফর এনআরবি’র হাইব্রিড কনফারেন্স অনুষ্ঠিত আট হাজার কোটি টাকা দামের বিমানে মোদির মার্কিন সফর, বিতর্কের ঢেউ ভারতজুড়ে ‘ইভানা আমাকে জানায় তার স্বামী পরকীয়ায় লিপ্ত’

ডুবে যাচ্ছে জাকার্তা!

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা পানির নিচে তলিয়ে যাবে। এমনটাই দাবি করেছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রায় এক কোটি মানুষের শহর জাকার্তা ২০৫০ সালের মধ্যে সম্পূর্ণরূপে পানির নিচে চলে যাবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তাঁরা।

জাভা সাগর বেষ্টিত জাকার্তার মধ্যে দিয়ে বয়ে গেছে ১৩টি নদী। এ কারণে খুব স্বাভাবিকভাবেই বছরে কয়েকবার বন্যার কবলে পড়ে শহরটি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, খুব দ্রুতই এ অবস্থার অবনতি ঘটছে। শহরটির স্থলভাগ আক্ষরিক অর্থেই অদৃশ্য হয়ে যাচ্ছে।

হেরি আন্দ্রেস নামের একজন গবেষক বলেন, বর্তমান পরিস্থিতির কোনো পরিবর্তনে না হলে ২০৫০ সাল নাগাদ উত্তর জাকার্তার ৯৫ শতাংশ পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়বে।

অনেকেই বিশেষজ্ঞদের এসব গবেষণা কিংবা সতর্কবাণীকে গুরুত্ব দিতে চান না। তাঁদের জন্য দুশ্চিন্তার কথা হলো, গত ১০ বছরে উত্তর জাকার্তার ২ দশমিক ৫ মিটার ইতিমধ্যেই ডুবে গেছে। একই সঙ্গে বেশ কিছু এলাকা বছরে ২৫ সেন্টিমিটার করে পানির নিচে চলে যাচ্ছে। যা বিশ্বের অন্যান্য উপকূলীয় মেগাসিটিগুলোর তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি।

ইন্দোনেশিয়ার বেশ কয়েকটি অঞ্চলের পানির উচ্চতা বৃদ্ধির প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। মুরা বারু এলাকার বেশ কয়েকটি অফিস ভবন পরিত্যক্ত হয়ে পড়েছে। ভবনগুলোর প্রথম তলা সম্পূর্নভাবেই পানির নিছে চলে গেছে। বেশ কয়েকটি স্কুলেও একই অবস্থা দেখা গেছে। এই এলাকাগুলোতে এখন মাছ চাষ করা হচ্ছে।

উত্তর জাকার্তা ঐতিহাসিকভাবেই একটি বন্দর শহর। বর্তমানেও এটি ইন্দোনেশিয়ার ব্যস্ততম সমুদ্র বন্দরগুলোর একটি। এর ফলে এখানে মানুষের সমাগমও হয় বেশি। শহরটিতে চার বছর ধরে বসবাসকারী একজন অধিবাসী বলেন, বেশ কয়েকবার প্লাবিত হয়েছে এই এলাকাটি। সমুদ্রের পানি সুইমিং পুলেও চলে আসে। এমনকি স্থানীয় সবাই প্রায়ই ভবনের নীচ তলা থেকে তাঁদের জিনিসপত্র সরিয়ে নিতে বাধ্য হয়।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট সমুদ্রের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে সারা বিশ্বের উপকূলীয় অনেক শহরই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তবে ইন্দোনেশিয়ার ক্ষেত্রে এটি নিশ্চিতভাবেই ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি করেছে। বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হলে সেদিন হয়তো আর খুব বেশি দূরে নয়, যেদিন এর অধিবাসীরা এক ডুবন্ত শহরে বাস করতে বাধ্য হবে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com