1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১, ০২:৫১ অপরাহ্ন

ঘটনাটি অপ্রত্যাশিত ও অনভিপ্রেত

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: ভাসানচরে জাতিসংঘ প্রতিনিধি দলের পরিদর্শনকালে রোহিঙ্গাদের বিক্ষোভ থেকে সৃষ্ট ঘটনাকে অপ্রত্যাশিত এবং অনভিপ্রেত বলে উল্লেখ করলেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। আর এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রচারিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের একটি অংশ এবং সিভিল সোসাইটির ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের বিরোধিতায় ধারাবাহিকভাবে ক্যাম্পেইন চলার দাবি করে বিষয়টি অসন্তোষের সঙ্গে বাংলাদেশ নোটে রেখেছে বলে জানানো হয়েছে। বিভ্রান্তিকর তথ্য এবং প্রকৃত সত্য প্রকাশ না করে ওই ক্যাম্পেইন চলছে দাবি করা ঢাকার তরফে বলা হয়- এমন ক্যাম্পেইন মানবতার প্রতি বাংলাদেশের গভীর মহানুভবতাকে অবজ্ঞা প্রদর্শন। সোমবারে রোহিঙ্গারা যা করেছে তা অতিরঞ্জন দাবি করে পররাষ্ট্র সচিব মঙ্গলবার সাংবাদিকদের জানান, জাতিসংঘ সদর দফতরের দুই জন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার উপস্থিতির সুযোগ নিয়ে ভাসানচরে রোহিঙ্গারা কেন বিক্ষোভ করলো, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তা তদন্তের অনুরোধ করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তার ভাষ্যটি ছিল এমন ‘যেটি ঘটেছে, সেটি একটু বেশি হয়ে গেছে।’ উল্লেখ্য, জাতিসংঘের অ্যাসিস্ট্যান্ট হাই কমিশনার ফর প্রটেকশন গিলিয়ান ট্রিগস ও অ্যাসিস্ট্যান্ট হাই কমিশনার ফর অপারেশনস রাউফ মাজুও সোমবার (৩১ মে) ভাসানচর পরিদর্শনে গেলে কয়েকশ’ রোহিঙ্গা তাদের সামনে বিক্ষোভ করেন। একইসঙ্গে তারা বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন, যা সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মিডিয়াসহ দেশের গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘বিদেশের কিছু সংবাদ মাধ্যম এবং আমাদের কিছু পত্রিকায় যেভাবে এসেছে, ব্যাপারটাকে সেভাবে না দেখাটাই বোধহয় ভালো হবে।’

এর আগেও বিদেশি রাষ্ট্রদূত ও জাতিসংঘের টিম ভাসানচরে গিয়েছিল জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ তখন আমি নিজেও গিয়েছিলাম। কিন্তু সোমবারের ঘটনাটি কিছুটা অপ্রত্যাশিত ছিল এবং অনভিপ্রেত।’ ভাসানচর ও কক্সবাজারের জীবন-যাপনে রোহিঙ্গারা পার্থক্য দেখতে পাচ্ছে জানিয়ে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘বিশেষ করে জীবিকার বিষয়গুলো এখানে (ভাসানচরে) প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হয়নি।
অন্যান্য যেসব কার্যক্রম যেমন- টুকটাক ব্যবসা বা জীবিকার উপাদান এখানে নেই। এছাড়া কালো জীবিকা যেমন- মাদক চোরাচালান বা মানবপাচারের মতো ব্যবস্থা এখানে নেই। এসব কারণে তাদের মধ্যে কিছুটা অসহিষ্ণুতা আছে বলে মনে হয়।’

স্মরণ করা যায়, জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) দুই সহকারী হাইকমিশনারের ভাসানচর পরিদর্শনকালে রোহিঙ্গাদের বিক্ষোভ পরবর্তী ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে সোমবার রাতে ইউএনএইচসিআর-এর ঢাকা অফিস একটি বিবৃতি দেয়। তাতে বলা হয়- “ভাসানচর দ্বীপে আজকে ইভেন্ট চলাকালে আহত হওয়া শরণার্থীদের বিষয়ে প্রতিবেদন জানতে পেরে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। আমরা দুঃখিত যে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে কয়েকজন শিশু এবং মহিলা রয়েছেন। শরণার্থীদের সুরক্ষা ও সুস্বাস্থ্য ইউএনএইচসিআর এর অগ্রাধিকার। আমরা জরুরিভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের অবস্থার বিষয়ে অনুসন্ধানে অব্যাহত রেখেছি। তাদের পর্যাপ্ত চিকিৎসা সহায়তা দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

ইউএনএইচসিআর প্রতিনিধিরা শরণার্থীদের একটি বড় অংশের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে এবং তাদের উত্থাপিত বিভিন্ন বিষয় শুনতে পেরেছে। প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও বিষয়টি নিয়ে আরও আলোচনা করবে।” বুধবার সেই আলোচনা হওয়ার কথা।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com