1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

সোমবার, ১১ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৪ অপরাহ্ন

উইঘুর নিয়ে চীনের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিল যুক্তরাষ্ট্র

চীনে উইঘুর মুসলমানদের ওপর নির্যাতনের বিরুদ্ধে ইস্তাম্বুলে চীনা দূতাবাসের সামনে উইঘুরদের বিক্ষোভ। ছবি: এএফপি

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর চীনের অমানবিক আচরণের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির সিনেটে (আইনসভা) চীনের জিনজিয়াং প্রদেশ থেকে পণ্য আমদানি বন্ধে একটি বিল পাস করা হয়েছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র জিনজিয়াং থেকে তুলা ও টমেটো আমদানি নিষিদ্ধ করে। চীন বিশ্বে তুলা সরবরাহের দিক থেকে পঞ্চম। দেশটির ৮৫ শতাংশ তুলা জিনজিয়াং প্রদেশে উৎপন্ন হয়।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, বুধবার মার্কিন পার্লামেন্ট কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে দুই সিনেটর জিনজিয়াং থেকে পণ্য আমদানি নিষিদ্ধে যৌথভাবে একটি বিলটি উত্থাপন করলে সেটি সর্বসম্মতভাবে পাস হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে এই বিল পাসের অর্থ হলো, চীনের জিনজিয়াং থেকে পণ্য আমদানির আগে আমদানিকারকদের প্রমাণ করতে হবে যে-জোরপূর্বক শ্রম দিয়ে ওইসব পণ্য উৎপাদন করা হয়নি। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র সুরক্ষা বিভাগ কারা কারা জিনজিয়াং থেকে পণ্য আমদানি করে তাদের একটি তালিকা করবে।

এক বিবৃতিতে রিপাবলিকানপন্থি সিনেটের মার্কো রুবিও বলেন, চীনা সরকার সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমদের কাছ থেকে জোরপূর্বক কাজ আদায় করে বিপুল মুনাফা অর্জন করছে। আমরা তাদের ওপর ভয়াবহ নির্যাতন চলতে দিতে পারি না।

এই বিল এখন হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে পাস হতে হবে। এরপর মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের স্বাক্ষর হলে এটি আইনে পরিণত হবে।

যুবকেরা লম্বা দাড়ি রাখতে পারবে না; ১৮ বছর বয়সের নিচের কেউ মসজিদে নামাজ পড়তে পারবে না; যারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করে এবং অফিস-আদালতে চাকরি করে তারা রমজান মাসে রোজা রাখতে পারবে না; নারীরা ইসলামি পোশাক পরতে পারবে না; এমনকি যেকোনো ধরনের আলোচনা ও গানবাজনা করতে চাইলে সরকারের অনুমতি নিতে হবে। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ জিনজিয়াংয়ে উইঘুর সম্প্রদায়ের জন্য এমন শাসন জারি রেখেছে চীন সরকার। সরকারের এই নীতির বিরোধিতা বা সমালোচনা করলেই কঠোর শাস্তি।

সম্প্রতি বিবিসির খবরে বলা হয়, উইঘুর ও অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের হাজারো মানুষকে অন্যত্র স্থানান্তরের একটি নীতি বাস্তবায়ন করছে চীন সরকার। ব্যাপকভিত্তিক কর্মসংস্থান প্রকল্পের আওতায় লোকজনকে জিনজিয়ান থেকে দূরের স্থানে স্থানান্তর করা হচ্ছে। ফলে, জিনজিয়ানে লোকসংখ্যা কমছে।

তবে জিনজিয়ান অঞ্চলের জনমিতি বদলে দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ অস্বীকার করছে চীন সরকার। তাদের ভাষ্য, লোকজনের আয় বৃদ্ধি, দীর্ঘস্থায়ী গ্রামীণ বেকারত্ব ও দারিদ্র্য দূরীকরণের লক্ষ্যে জিনজিয়ান থেকে লোকজনকে অন্যত্র স্থানান্তর করা হচ্ছে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com