1. ahmedshuvo@gmail.com : admi2018 :
  2. mridubhashan@gmail.com : Mridubhashan .Com : Mridubhashan .Com

বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন

সিনেমার শিল্পীদের যত হাহাকার

মৃদুভাষণ ডেস্ক :: পরপর দুটি ঈদ গেল। অভিনয়ের বয়স একবছরও হয়নি, ছোটপর্দার এমন কাউকেও ফ্রি পাবেন না। মাসে কমপক্ষে ১৫ দিন শুটিংয়ে। আর এই ব্যস্ততার হিসেব যদি করা হয় ছোটপর্দার প্রথম শ্রেনীদের বেলায়। হাত পা ধরে কাজ ছেড়ে দিয়েও তাদের শুটিং করতে হয় মাসে ২০-২৫ দিন। এর বিপরীত চিত্র বাংলা সিনেমায়। দিনের পর দিন কাজ নেই। এক্সট্রা আর্টিস্টরা এফডিসিতে শুয়ে বসে দিন কাটায়। অধীর অপেক্ষায় চেয়ে থাকে কে ডাকবে কবে। এর মধ্যে কাজ বলতে, শুধু শাকিব খানের সিনেমা। তিনিও তো প্রায় প্রায়ই কলকাতায় গিয়ে থেকে যান। কে দেখবে আমাদের এই বাংলা ইন্ডাস্ট্রি ও তার অভাগা শিল্পীদের?

সিনেমার এক্সট্রা আর্টিস্টরা না হয় এফডিসিতে যায় কাজের খোঁজে। প্রথম অথবা দ্বিতীয় ক্যাটাগরির নায়ক-নায়িকাদের হাল কী? মাসের পর মাস কাজহীন জীবন কিভাবে চলে? একটা সিনেমার জন্য যেন কাকপক্ষির মতো চেয়ে থাকে। তাদের এমন দশা। না পাড়েন ছোটপর্দায় কাজ করতে। সবাই বলবে হায় হায় ছোট পর্দায় কাজ করছে। কৌফিয়ত দিতে দিতে শেষ। বিজ্ঞাপনেও তাদের খুব বেশি ডাকা হয় না। কারণ, সিনেমায় ক্যারিয়ার গড়ার জন্য তাদের পরিচিতির গন্ডি শুধু এফডিসি কেন্দ্রীকই। নাটক- বিজ্ঞাপন অনেকটা কোলঘেষা হলেও সিনেমা যেন অন্য জগৎ। সেই জগতের বাসিন্দার ভালো নেই। অথচ নায়ক নায়িকাদের সেই স্টারডম মেইনটেইন করে বের হতে হয়। না হয় বেকার বাসায় বসে বসেই দিন কাটে। অনেকে অবশ্য এখন টুকটাক মডেলিং করছেন।

সনি কথাচিত্র, গ্রামীণ কথাচিত্র, শুভ ইন্টারন্যাশনাল, আশা প্রডাকশনস, সজনী ফিল্মস, ফাইভস্টার ফিল্মস, মা কথাচিত্রের মতো নামকরা সব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিনেমা নির্মাণ বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে এই সময়ের অনেক তারকার হাতেই নেই কোনো নতুন ছবি।

কয়েক বছর ধরেই ছবি নির্মাণের হার কমছে। পাঁচ বছর আগেও যেখানে ৭০-৮০টি করে ছবি মুক্তি পেত, এখন সেখানে মাত্র ৪০-৪৫টিতে ঠেকেছে। সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি বলতে গেলে চলে একজনের নামে। মাঝেমধ্যে ‘ঢাকা অ্যাটাক’, ‘আয়নাবাজি’ হলেও, সেসব পরিচালকরা নিয়মিত নন। আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে প্রযোজকরা একে একে গুটিয়ে নিচ্ছেন ব্যবসা। শিল্পীরাও হয়ে পড়ছেন বেকার। গত ছয় মাসে নতুন কোনো ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হননি এমন তারকার লাইন বেশ লম্বা। বলতে গেলে চলে আসে বাপ্পী, সাইমন, আরিফিন শুভ, আঁচল, মাহি, আইরিন, অমূতা, পরীমণি, মিষ্টি জান্নাত, বিদ্যা সিনহা মিম, জায়েদ খানদের নাম। আগে চুক্তিবদ্ধ হওয়া ছবিগুলোর শুটিং নিয়েই এখন সময় ব্যয় করছেন তাঁরা।

শুধু শিল্পীরা কেন? ইন্ডাস্ট্রির বড় বড় পরিচালকের হাতেও কিন্তু নতুন ছবি নেই। অনেকেই ঘোষণা দিয়েছেন নতুন ছবির, কিন্তু ক্যামেরা ওপেন হয়নি।

‘ঢাকা অ্যাটাক’ সিনেমার পরও আরেফিন শুভর ক্যারিয়ার তেমন রমরমা চলছে না। আমেরিকা গিয়েছিলেন। সেখানে বিভিন্ন শোতে অংশগ্রহণ করেছেন।

দুই বছর আগেও বাপ্পী চৌধুরীর শিডিউল পেতে প্রযোজকদের রীতিমতো ধরনা দিতে হতো। অনেককেই ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছিলেন বাপ্পী। অথচ বাপ্পীর হাতে নতুন ছবি নেই।

জায়েদ খানেরও একই দশা। সর্বশেষ ‘অন্তরজ্বালা’ মুক্তি পেয়েছিল। নতুন কিছু সিনেমার কথাবার্তা চলছে। সেসব সিনেমার শুটিং কবে শুরু হবে আর মুক্তি কবে পাবে তা বলা যাচ্ছে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত মৃদুভাষণ - ২০১৪
Design & Developed BY ThemesBazar.Com